নতুন প্রযুক্তির পারমাণবিক বোমা পরীক্ষা করলো যুক্তরাষ্ট্র

নতুন সিরিজের একটি উন্নত সংস্করণের পারমাণবিক বোমার সফল পরীক্ষা চালিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। কয়েক দশকব্যাপী সমরাস্ত্র উন্নয়নের অংশ হিসেবে স্যান্ডিয়া ন্যাশনাল ল্যাবরেটরিজের বিজ্ঞানীরা এই পরীক্ষা চালিয়েছেন।বি৬১-১২ বোমাটি নিয়ে কয়েক বছর ধরেই গবেষণা চালিয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, পারমাণবিক বোমাটির মক ভার্সনের এই পরীক্ষা পরবর্তী পরিমার্জনের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল।

গত মাসে নেলিস এয়ার ফোর্স ঘাঁটি থেকে এফ-১৬ বিমানে করে বোমাটি নেভাদা মরুভূমিতে ফেলা হয়। মক ভার্সনটি ছিল সম্পূর্ণ অ-পারমাণবিক। এর এই অ-পারমাণবিক কার্যক্রম এবং বিমানে বহনের সক্ষমতা যাচাই করতেই এই পরীক্ষা। টনোপা টেস্ট রেঞ্জে বোমাটি ফেলা হয় একটি মৃত হ্রদের তলদেশে। কয়েক মাইল দূর থেকে শুধু বিশাল ধোঁয়ার মেঘ দেখতে পেয়েছে অনেকে।

এই পরীক্ষায় প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত যাচাই বাছাই করতে কয়েক মাসব্যাপী একটি পরিকল্পনা নিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। ট্র্যাকিং টেলিস্কোপ, দূরবর্তী ক্যামেরা এবং অন্যান্য যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে এসব তথ্য সংগ্রহ করা হয়। এর ভিত্তিতে বাস্তবে প্রয়োগ করার যোগ্যতা নির্ধারণে নির্ভরযোগ্যতা, নির্ভুলতা এবং দক্ষতা যাচাই করা হবে।

এদিকে ন্যাশনাল নিউক্লিয়ার সিকিউরিটি অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের কর্মকর্তারা জানান, আগামী তিন বছরে আরো কয়েকটি পরীক্ষা চালাবেন তারা। বি১৬-১২ এর প্রথম ইউনিটটি ‘লাইফ এক্সটেনশন প্রোগ্রাম’ শীর্ষক কর্মসূচির অধীনে তৈরি করা হয়। ২০২০ সালের মধ্যে এই প্রকল্প শেষ হবে। যুক্তরাষ্ট্রের আগের চারটি পুরাতন সংস্করণের পারমাণবিক বোমার সমন্বয় এবং প্রতিস্থাপন এই বি১৬-১২ মডেল।

গত বৃহস্পতিবার (১৩ এপ্রিল) আফগানিস্তানে নিক্ষিপ্ত অ-পারমাণবিক বোমা ‘মাদার অব অল বম্ব’ থেকে এটি অনেক আলাদা। এই বোমা বি১৬-১২ এর মতো গভীরে প্রবেশ করতে পারে না কিন্তু ভূপৃষ্ঠে বিশাল এলাকাজুড়ে বিস্ফোরিত হতে পারে। তাছাড়া এই বোমা বহনের জন্য বড় আকারের কার্গো বিমান দরকার পড়ে।

বাংলাদেশ সময় ১৫৩৫ ঘণ্টা, ১৬ এপ্রিল, ২০১৭

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/এস

  • ট্যাগ
  • usa
শেয়ার করুন