‘অভিশংসনের যোগ্য নন ট্রাম্প’

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অভিশংসনের যোগ্য নন বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির হাউজ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি। গতকাল মঙ্গলবার মার্কিন একটি দৈনিককে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন তিনি।

পেলোসি বলেন, ‘সে(ট্রাম্প) দেশ চালানোর জন্য একেবারেই উপযুক্ত নন। কিন্তু তাই বলে তাকে অভিশংসন করা যায় না। কারণ তিনি সেটারও যোগ্য নন।’

সাক্ষাৎকারে পেলোসি আরও বলেন, ‘আমি অভিশংসনের পক্ষে নই। এটাই একটা খবর। আমি আর কোনো কাগজকে এতদিন এ কথা বলিনি। আপনারা প্রশ্ন করলেন, তাই বলছি। আমিও এটা নিয়ে ভাবছিলাম। ইমপিচমেন্ট (অভিশংসন) এমন একটা ব্যাপার, যা নিয়ে দেশ দুই ভাগে ভাগ হয়ে যেতে পারে। তাই এমন একটা পদক্ষেপ তখনই করা যায় যখন তেমন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিবেচনায় আসে। ট্রাম্পের জন্য দেশ দুই ভাগ হয়ে যাবে, এটা ভাবাই যায় না। উনি স্রেফ এর যোগ্য নন।’

তিনি আরও বলেন, ‘নৈতিকভাবে, বুদ্ধিবৃত্তিক দিক থেকে এবং আগ্রহের বিষয় হয়ে ওঠার ক্ষেত্রে ট্রাম্প একেবারেই অযোগ্য। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদে তাকে মেনে নেওয়া যায় না।’

ওয়াশিংটন পোস্টকে দেওয়া একই সাক্ষাৎকারে পেলোসি ট্রাম্পকে প্রেসিডেন্ট হওয়ার অযোগ্য বলে মন্তব্য করেন।  তিনি বলেন, ‘বর্ণবাদী ও অভিবাসনবিরোধী অবস্থানের কারণে কারও কারও হয়তো ট্রাম্পকে পছন্দ হতে পারে। কিন্তু এ কথা ভুললে চলবে না, এই প্রেসিডেন্ট চান না, আমাদের শিশুরা বিশুদ্ধ বায়ু গ্রহণ করুক। অথবা তারা বিশুদ্ধ পানি পান করুক বা বিশুদ্ধ খাদ্য গ্রহণ করুক। আমাদের দায়িত্ব হলো এসব জরুরি কাজের জন্য প্রতিদিন লড়াই চালিয়ে যাওয়া।’

এদিকে সম্প্রতি হাউসের বিচার বিভাগীয় কমিটির চেয়ারম্যান জেরি ন্যাডলার বড়সড় তদন্তের জন্য চিঠি দিয়েছেন ৮১ জনকে। সে চিঠি গিয়েছে হোয়াইট হাউজ, বিচার বিভাগ, উচ্চপদস্থ প্রচার অফিসার, ট্রাম্প প্রতিষ্ঠানের অফিসার এবং প্রেসিডেন্টের ছেলেদের কাছে। দুর্নীতি, বিচারকাজে বাধাদান এবং ক্ষমতার অপব্যবহারের মতো অভিযোগ উঠেছে তাদের বিরুদ্ধে। ডেমোক্রেটদের দাবি, ট্রাম্পের প্রথম দুই বছরের মেয়াদে প্রশাসনিক কাজ সেভাবে খতিয়ে দেখাই হয়নি।