Home জাতীয় গুজব ও ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলুন : পিএমও

গুজব ও ডেঙ্গুর বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলুন : পিএমও

- Advertisement -

গুজব ছড়ানো এবং ডেঙ্গুর বিস্তার রোধে সমাজের সকল শ্রেণি পেশার মানুষকে একত্রিত করে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার ওপর গুরুত্বারোপ করেছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় (পিএমও)।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে বুধবার বিকালে তার তেজগাঁওস্থ কার্যালয়ে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মন্ত্রণালয় এবং দপ্তরকে নিয়ে অনুষ্ঠিত এ সংক্রান্ত এক সমন্বয় সভায় এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়।

- Advertisement -

সরকারি সফরে যুক্তরাজ্যের লন্ডনে অবস্থানকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের সার্বিক পরিস্থিতির ওপর সার্বক্ষণিক দৃষ্টি রাখার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় নির্দেশনাও দিয়ে যাচ্ছেন।

সমন্বয় সভা শেষে প্রধানমন্ত্রীর স্পিচ রাইটার মো. নজরুল ইসলাম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। সভায় গুজব, ডেঙ্গু এবং বন্যা প্রতিরোধে সংশ্লিষ্ট সকল মন্ত্রণালয়, দপ্তর, বিভাগ এবং সিটি কর্পোরেশনগুলো এ সম্পর্কে নিজস্ব পরিকল্পনা-প্রস্তুতি এবং পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরেন।

পিএমও এ সময় ঢাকা উত্তর এবং দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনকে ডেঙ্গু প্রতিরোধে তাদের মশক নিধন অভিযানকে জোরদার করার আহবান জানায়।

সেইসাথে হাসপাতালগুলোতে ভর্তি ডেঙ্গুরোগীর প্রতি বিশেষ নজর প্রদানে প্রতিটি হাসপাতালে বিশেষ মেডিকেল টিম গঠনের নির্দেশনা প্রদান করে।

বৈঠকে বৃহস্পতিবার থেকে ডেঙ্গু প্রতিরোধে ‘সচেতনতা সপ্তাহ’ পালনের সিদ্ধান্ত হয়। যার মধ্যে রয়েছে লিফলেট বিতরণ, মাইকিং এবং গণমাধ্যমে প্রচারণা চালানো।

পিএমও সকল সরকারি দপ্তরগুলোকে নিজস্ব অফিস এলাকা পরিচ্ছন্ন রাখার মাধ্যমে ডেঙ্গু প্রতিরোধের আহবান জানায়।

জনগণের বাড়ি-ঘড় এবং আশপাশের এলাকা বিশেষকরে কোন পাত্রে বা ফুলের টবে জমে থাকা পানি, এয়ার কন্ডিশনার এবং রিফ্রিজারেটর থেকে নির্গত স্বচ্ছ পানি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে উক্ত স্থান শুষ্ক রাখার জন্যও সভায় আহবান জানানো হয়।

পদ্মা সেতু নির্মাণের জন্য মানুষের মাথার প্রয়োজন বলে সারাদেশে একটি স্বার্থান্বেষী মহলের ছড়ানো গুজব সম্পর্কে বৈঠকে, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের প্রতি গুজব ছড়ানো ব্যক্তিবর্গের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়।

এরসঙ্গে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি (চেয়ারম্যান, মেম্বার, গ্রামপ্রধান), শিক্ষক, মসজিদের ইমাম, স্থানীয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের সম্পৃক্ত করে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তোলার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়।

খবর: বাসস

ইত্তেফাক

- Advertisement -