শব্দের চেয়েও পাঁচগুণ দ্রুত গতির ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা যুক্তরাষ্ট্রের

শব্দের চেয়েও পাঁচগুণ দ্রুত গতির ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা যুক্তরাষ্ট্রের
সংগৃহীত ছবি

এবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র শব্দের চেয়েও পাঁচগুণ দ্রুত গতির হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালিয়েছে। এর আগে গত সপ্তাহে হাইপারসনিক এয়ার-ব্রিদিং উইপন কনসেপ্ট (এইচএডব্লিউসি) এর ফ্রি ফ্লাইট টেস্ট পরিচালনা করেছে দেশটি। ডিফেন্স অ্যাডভান্সড রিসার্স প্রজেক্ট এজেন্সি (ডারপা) গতকাল সোমবার এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে বলে জানিয়েছে ডয়েচে ভেলে।

জানা যায়, ২০১৩ সালের পর এই প্রথম হাইপারসনিক শ্রেণির অস্ত্রের পরীক্ষা চালালো যুক্তরাষ্ট্র। এই ক্ষেপণাস্ত্রটি তৈরি করেছে রেথিওন টেকনোলজিস অ্যান্ড নরথপ গ্রুম্যান।

এ প্রসঙ্গে এইচএডব্লিউসি এর প্রোগ্রাম ম্যানেজার অ্যান্ড্রু নোয়েডলার বলেছেন, ‘সামরিক শক্তির সক্ষমতার দিক থেকে এই ক্ষেপণাস্ত্র যুক্তরাষ্ট্রকে আরও এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে গেলো।’

হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র মূলত বায়ুমণ্ডলের উপরিভাগ দিয়ে চলে। যুক্তরাষ্ট্রের নতুন এই ক্ষেপণাস্ত্র শব্দের চেয়ে পাঁচগুণ বেশি গতিতে চলে। ঘণ্টায় এর গতি থাকে ৬২০০ কিলোমিটার।

ডয়েচে ভেলে জানায়, পরীক্ষার সময় একটি যুদ্ধবিমানের উইং থেকে ক্ষেপণাস্ত্রটি নিক্ষেপ করা হয়। এর এক সেকেন্ডের মধ্যে একটি রকেট বুস্টারের মাধ্যমে ক্ষেপণাস্ত্রটির গতিবেগ বাড়িয়ে দেওয়া হয়। এর ফলে গতি পায় অস্ত্রটি। তার এক সেকেন্ডের পরেই ক্ষেপণাস্ত্রটির মধ্যে লাগানো আরেকটি ইঞ্জিন চালু হয়। যা এর গতিবেগ শব্দের চেয়ে পাঁচগুণ বেশি বাড়িয়ে দেয়।

গত জুলাইয়ে রাশিয়া দাবি করেছিলো, তারা টিসারকন (জিরকন) হাইপারসনিক ক্রুস ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালিয়েছে। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছিলেন, এটি নতুন প্রজন্মের ক্ষেপণাস্ত্রের একটি অংশ। বিশ্বে এর কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী নেই।

সংবাদ সূত্রঃ ডয়েচে ভেলে