শিক্ষা কর্মকর্তাকে থাপ্পড় মারা সেই মেয়রকে আ. লীগ থেকে বহিষ্কার

শিক্ষা কর্মকর্তাকে থাপ্পড় মারা সেই মেয়রকে আ. লীগ থেকে বহিষ্কার
আওয়ামী লীগ থেকে বহিস্কৃত পৌরসভার মেয়র মো. শাহনেওয়াজ শাহানশাহ - সংগৃহীত ছবি

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো. শাহনেওয়াজ শাহানশাহকে শিক্ষা কর্মকর্তাকে থাপ্পড় মারার অভিযোগে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে এ সংক্রান্ত একটি পত্র গণমাধ্যমের হাতে আসে। মেয়র শাহনেওয়াজ শাহানশাহ উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ছিলেন।

বহিষ্কারাদেশে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ বাকী বিল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ চৌধুরী জানান, মেয়র শাহনেওয়াজ শাহানশাহ শিক্ষা কর্মকর্তাকে লঞ্ছিত করায় আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে, যা দলের জন্য বিব্রতকর। সাংগঠনিক কার্যকলাপ ভঙ্গ হয় এমন কাজে লিপ্ত এবং দলের শৃঙ্খলা ফেরাতে শাহনেওয়াজ শাহানশাহকে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য পদ থেকে বহিষ্কারপূর্বক অব্যাহতি দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, গত ১৬ ডিসেম্বর দেওয়ানগঞ্জ সরকারি হাইস্কুল মাঠে বিজয় দিবসের পুষ্পস্তবক অর্পণে নামের সিরিয়াল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে মেয়র শাহনেওয়াজ শাহানশাহ অনুষ্ঠানের উপস্থাপক উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মেহের উল্লাহকে চড়-থাপ্পড় মারেন ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লাঞ্ছিত শিক্ষা কর্মকর্তা লিখিত অভিযোগ জানান এবং থানায় মামলা করেন।

গতকাল রোববার দুপুরে পৌর মেয়রের অপসারণ ও গ্রেফতারের দাবিতে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীরা মানববন্ধন করেন। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে ফলাও করে সংবাদ প্রকাশিত হলে পৌর মেয়রকে দল থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

পৌর মেয়র মো. শাহনেওয়াজ শাহানশাহ আত্মগোপনে থাকায় এবং তার মোবাইল নম্বর বন্ধ থাকায় বহিষ্কারের বিষয়ে বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ বাকী বিল্লাহ বলেন, শাহনেওয়াজ শাহানশাহ দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির সদস্য ছিলেন। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।