Home চট্টগ্রাম বিভাগ চট্টগ্রাম স্কুলগামী শিশুদের জন্য মরণফাঁদ ;বরাদ্দের অভাবে ফটিকছড়িতে সংস্কার না হওয়া এদুটি...

স্কুলগামী শিশুদের জন্য মরণফাঁদ ;বরাদ্দের অভাবে ফটিকছড়িতে সংস্কার না হওয়া এদুটি সেতু ; ঘঠছে মৃত্যুর ঘঠনাও

- Advertisement -

মোঃইফতেখার (চট্টগ্রাম প্রতিনিধি) ঃ  ফটিকছড়ি উপজেলার মরণফাঁদ বলে পরিচিত এই ব্রিজটি ফটিকছড়ি উপজেলার  ভূজপুর থানার দাঁতমারা ইউনিয়নের শান্তিরহাট বাজার এর  মোট ৩টি সরকারি ও আধা সরকারি  শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় ১০ হাজার শিক্ষার্থী এবং ওপারে  পশ্চিমে ৫টি গ্রাম, ২টি বনবিট ও ১টি রাবার বাগান সহ প্রায় ৫০হাজার মানুষের যাতায়াতের   সংযোগস্থল এই দুটি সেতু ।

  যার উপর দিয়ে প্রতিদিন  বৃদ্ধ, তরুন,শিশু মিলিয়ে  অন্তত ১৫-২০ হাজার পথচারী যাতায়াত করে ।সেতুটির দুইপাশে কোন রেলিং নাথাকায় এবং প্রশস্ততা কম হওয়ায় প্রায় ঘঠছে দূর্ঘটনা।ফলে সেতুটি দিয়ে বড় কোন যান চলাচল করতে পারেনা।

- Advertisement -

এদিকে শান্তিরহাট উঃ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব আবদুল বারেক গত বিশ বছর ধরে সংস্কারহীনতার কথা তুলে ধরে বলেন, এর আগে সেতুটি থেকে অত্র বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর  শিক্ষার্থীসহ একাধিক শিক্ষার্থী রিক্সাসহ ব্রিজটি হতে পড়ে গিয়ে মৃত্যু বরণ করেন।এমনকি বাদযায়নি   মাদ্রাসা শিক্ষক,পথচারী ও মটরসাইকেল।এভাবে প্রায় এই ব্রিজটি হতে প্রতি বছর  নানাভাবে দূর্ঘটনার শিকার হতে হয়।

এদিকে সাক্ষাৎখারে শান্তিরহাট বাজারের স্থানীয় সচেতন  ব্যবসায়ী জনাব জসিম উদ্দিন,ডা.শাহিন ,শাঃ মিসকাতুননবী দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক জনাব মহিউদ্দিন ও মসজিদের খতিব মাওলানা মাহবুবুর রহমান জানান ; কাছের খিলের আর একটি  ঝুঁকিপূর্ণ কালভার্টটি যার পাশেই সৃষ্টি হয়েছে ১০০ফুটের মত বড় একটি খাদ যা দ্রুত  সংস্কারের প্রয়োজন এ কারণে, অন্তত হাজার হাজার মাদ্রাসা ও  স্কুল  শিক্ষার্থীর জীবনের নিরাপত্তার  কথা ভেবে হলেও  উপজেলা প্রশাষনকে  এগিয়ে আসার অনুরোধ জানান।

কার্যত এ দুটি ব্রিজ নির্মাণের প্রয়োজন খুব  জরুরী হওয়ায় এ বিষয়ে  দুটি প্রস্তাবনা দাঁতমারা ইউনিয়ন থেকে এলজিআরডি নিকট পাঠানো হলেও এখনো কোন ফলাফল না আশায় হতাশা প্রকাশ করে, মাননীয় এমপি নজিবুল বাশার মাইজভান্ডারি কে দাতঁমারার উন্নয়নে সহযোগিতার  অনুরোধ জানিয়েছেন এলাকাবাসী।এদিকে কবে নাগাদ কাজ হতে পারে তা এখনো নিশ্চিত না হলেও,স্থানীয় চেয়ারম্যান জনাব জানে আলম বলেন আশা করছি এ অর্থ বছরের মধ্যেই হবে।

উল্লেখ্য প্রায় নব্বই দশক থেকে সংস্কারহীনতায়  থাকা এ দুটি ব্রিজ খুবি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় নতুনভাবে  নির্মাণের দাবি করে আসছে অত্র এলাকার সর্বস্তরের জনসাধারণ

- Advertisement -