Home প্রবাস দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীর হাতে ১০ দিনে ৪ বাংলাদেশি নিহত

দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীর হাতে ১০ দিনে ৪ বাংলাদেশি নিহত

- Advertisement -

গত ১০দিনে দক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীদের হাতে ৪ জন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন।  এরমধ্যে শনিবার রাতে গুলিতে মারা যান ফেনীর যুবক নাজমুল হুদা বিপ্লব (২৫)। গত ২৮শে জানুয়ারি ছুরিকাঘাতে মারা যান ফেনীর আরেক যুবক শাহ পরাণ। এছাড়া ২৫শে জানুয়ারি সন্ত্রাসীদের গুলিতে মারা যান মাদারীপুরের সিরাজুল ইসলাম মোল্লা এবং এর দুইদিন আগে ২৩শে জানুয়ারি মহিন উদ্দিন মহিন (৪০) ফেনীর ব্যক্তি। দেশটির কৃষ্ণাঙ্গ সন্ত্রাসীদের চাঁদাবাজির শিকার হয়ে তারা মারা যান।  

ফেনী প্রতিনিধি জানান, দক্ষিণ আফ্রিকায় দুর্বৃত্তের গুলিতে নাজমুল হুদা বিপ্লব নামের (২৫) নামে ফেনীর দাগনভূঞার এক যুবক নিহত হয়েছেন। শনিবার রাতে দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গের সোয়েটো লোকেশনের এলডেরাডো পার্ক এলাকায় তার দোকানে কৃষ্ণাঙ্গ সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হন। নিহত বিপ্লব দাগনভূঞার উত্তর শ্রীধর পুর গ্রামের হোসেন সেরাং বাড়ির আবদুর রাজ্জাক ওরফে রেজু মিয়ার ছেলে। নিহতের বাবা আবদুর রাজ্জাক জানায়, জীবিকার তাগিদে ৫ বছর আগে দক্ষিণ আফ্রিকায় পাড়ি জমায় বিপ্লব।

- Advertisement -

আফ্রিকার এলডেরাডো পার্কের ওই দোকানে বিপ্লব কাজ করার সময় শনিবার রাত ৮ টার দিকে স্থানীয় কৃষ্ণাঙ্গ সন্ত্রাসী দোকানে হামলা চালায়। এ সময় সে বাধা দিলে সন্ত্রাসীরা তাকে গুলি করে মালামাল লুট করে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে স্থানীয়রা বিপ্লকে উদ্ধার করে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। বিপ্লবের মৃত্যুর বিষয়টি তার বাড়িতে ফোন করে জানান, দক্ষিণ আফ্রিকা বসবাসরত বাংলাদেশী (স্থানীয় যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক) মো. মিলন। এদিকে বিপ্লবের মৃত্যুর খবর পেয়ে পরিবারে শোকের মাতম চলছে। ছেলেকে হারিয়ে বাবা-মা শোকে বিহবল হলে পড়েছে।  দাগনভূঞা পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর (১নং ওয়ার্ড) জাকির হোসেন জানান, বিপ্লবের মরদেহ দ্রুত দেশে আনতে দক্ষিণ আফ্রিকায় বাংদেশের দুতাবাস ও সরকারের সহযোগীতা চেয়েছে পরিবার। 

গত ২৫শে জানুয়ারি রাতে দক্ষিণ আফ্রিকার টেম্বিসা অকমোর এলাকায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে খুন হন মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার বাসিন্দা ব্যবসায়ী সিরাজুল ইসলাম মোল্লা (৩০)। নিহত সিরাজুলের পরিবার জানায়, ওইদিন রাতে ব্যবসায়ী সিরাজুল ইসলাম দক্ষিণ আফ্রিকার টেম্বিসা অকমোর এলাকায় তার দোকান থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় পথে একদল সন্ত্রাসী সিরাজুলের বহনকারী গাড়ির গতিরোধ করে। সিরাজুল গাড়ি থেকে নামতে অসম্মতি জানালে সন্ত্রাসীরা তাকে গুলি করে। এতে সিরাজুলের পেটে ও পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়। পরে দক্ষিণ আফ্রিকার স্থানীয় একটি হাসপাতালে তাকে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২৭শে জানুয়ারি সিরাজুলের মৃত্যু হয়। 

গত ২৭শে জানুয়ারি দেশটির জুলু নাটাল প্রদেশের পিটা মেরিজবার্গে এক বাংলাদশি যুবক শাহ পরাণকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। তার বাড়ি  ফেনীর মহিপাল মধ্যম চড়িপুরে। দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী আরাফাত চৌধুরী বলেন, সুপার মার্কেটের ভেতর দোকানের মালামালের দাম করে নিয়ে এক স্থানীয়র সঙ্গে ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়েন নিহত ওই প্রবাসী। কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে তাকে ছুরিকাঘাত করলে তিনি মারা যান।

এছাড়া ২৩শে জানুয়ারি রাতে দক্ষিণ আফ্রিকার নর্থ-ওয়েস্ট প্রভিন্সের রাস্টেনবার্গ এলাকায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে একই জেলার দাগনভূঞা উপজেলার মহিন উদ্দিন মহিন (৪০) নামে এক যুবক নিহত হন। মহিনের নিজের দোকানে মর্মান্তিক এ ঘটনা ঘটে। নিহতের ভাই হুমায়ুন কবির জানান, বেশ কিছুদিন যাবত কৃষ্ণাঙ্গ সন্ত্রাসীরা চাঁদার দাবিতে মহিনকে হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছিলো। বুধবার রাতে কয়েকজন সন্ত্রাসী দোকানে হামলা করে লুটপাট করতে গেলে মহিন উদ্দিন বাধা দেয়। এতে সন্ত্রাসীরা তাকে গুলি করে হত্যা করে লাশ ফ্রিজে রেখে যায়। পরদিন সকালে দোকান বন্ধ দেখে পার্শ্ববর্তী ব্যবসায়ী ও লোকজন খোঁজাখুজি করতে গিয়ে দোকানের ভেতরে ফ্রিজের মধ্যে মহিনের লাশ দেখতে পেয়ে তার তালতো ভাই আনোয়ার হোসেনকে জানান। আনোয়ার বাংলাদেশে ফোন করে পরিবারকে মহিনের মৃত্যু খবর জানান।  দাগনভূঞার পূর্ব চন্দ্রপুর ইউনিয়নের চন্দ্রদ্বীপ গ্রামের রমিজ উদ্দিন মিয়ার বাড়ির তনু মিয়ার ছেলে মহিন উদ্দিন ৩ বছর আগে জীবিকার তাগিদে দক্ষিণ আফ্রিকায় পাড়ি জমান। তনু মিয়ার ৪ ছেলে, ১ মেয়ের মধ্যে মহিন মেজো। মহিনের ৩ মেয়ে ও ১ পুত্র সন্তান রয়েছে। 

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/বিএনকে

- Advertisement -