হোয়াইট হাউসে প্রাণঘাতী করোনায় আক্রান্ত ২ জন

White House

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রে লকডাউন খুলে দেওয়ার ব্যাপারে কয়েকদিন থেকেই জোর দিয়ে আসছেন। কিন্তু লকডাউন খুলে দেওয়ার পর মার্কিনিদের নিরাপদ রাখার বিষয়েও চ্যালেঞ্জ রয়েছে।

কারণ, ট্রাম্পের আশেপাশের লোকদের মধ্যেই করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে। যেখানে হোয়াইট হাউসের মতো জায়গায় করোনা কংক্রমণের ঘটনা ঘটছে, সেখানে অন্যান্য স্থানে কী করে মানুষকে নিরাপদে রাখা যায়, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।

ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের প্রেস সেক্রেটারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন গতকাল শুক্রবার। আরো বেশ কয়েকজনকে পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। এর আগের দিন ট্রাম্পের সামরিক একজন কর্মকর্তা করোনা আক্রান্ত হিসেবে চিহ্নিত হয়েছেন। ওই ব্যক্তি ট্রাম্প ও তার পরিবারের সদস্যদের খাবার ও পানীয় নিরাপদ কিনা, তা পরীক্ষার দায়িত্বে ছিলেন।

এখন প্রশ্ন উঠছে, হোয়াইট হাউসের মতো জায়গায় এর আগে সপ্তাহে একদিন করোনা পরীক্ষা করা হতো। এখন সেখানে দৈনিক পরীক্ষা শুরু করেও করোনা থামানো যাচ্ছে না। সেখানে সারাদেশের মানুষ নিরাপদ থাকতে পারে কি?

সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা প্রশাসনের একজন কর্মকর্তা জুলিয়েট কায়েম বলেন, ভাইরাস এখন হোয়াইট হাউসে ঢুকে গেছে, এটা চোখে দেখে আটকানোর কোনো উপায় আছে?

তিনি আরো বলেন, আক্রান্ত আরো কেউ থাকুক বা না থাকুক, আমরা শিগগিরই আরো বিস্তারিত জানতে পারবো। তবে এটা সত্য যে, কোনো জায়গা সুরক্ষিত নয়। ক্ষয়ক্ষতি কম হওয়ার সর্বোত্তম স্থান বলে কিছু নেই। আত্মবিশ্বাস থাকলেই ভাইরাসটি থামানো সম্ভব নয়। অতি আত্মবিশ্বাসের কারণে এই ভাইরাসের কাছে পরাস্ত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে

এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে মোট ১৩ লাখ ২১ হাজার সাতশ ৩৫ জন এবং মারা গেছে ৭৮ হাজার ছয়শ ১৫ জন।

কিন্তু তার পরেও যুক্তরাষ্ট্র লকডাউন থেকে সরে আসার পথে হাঁটছে। যদিও করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুহার কমানোর জন্য পরিকল্পনা করছে মার্কিন প্রশাসন।

কিন্তু সম্প্রতি ফাঁস হওয়া এক নথিতে বলা হয়, লকডাউন খুলে দেওয়া হলে ১ জুন থেকে দিনে তিন হাজার মানুষ মারা যাবে। সেই হিসাবে এক মাসেই মারা যাবে ৯০ হাজার মার্কিনি।

জানা গেছে, এর আগে ট্রাম্প করোনা পরীক্ষার বিষয়টিকে শিল্প সম্মত নয় বলে সপ্তাহে একবার পরীক্ষার কথা বলেছিলেন। কিন্তু নিজের সংস্পর্শে থাকা কর্মচারি আক্রান্ত হওয়ার জেরে এখন থেকে দৈনিক পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স সুস্থ আছেন। তাদের সর্বশেষ করোনা পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এসেছে।
: দ্য নিউইয়র্ক টাইমস