রিকশাচালককে অমানবিকভাবে নাজেহাল, অভিযুক্ত আটক

রিকশাচালককে অমানবিকভাবে নাজেহাল, অভিযুক্ত আটক

চরম অমানবিকতার ঘটনা ঘটেছে কক্সবাজার শহরের এক রিকশাচালকের সঙ্গে। সেই ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর পুলিশ অভিযুক্ত শুক্কুর আলীকে আটক করেছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় শহরের মোহাজের পাড়া থেকে অভিযুক্ত শুক্কুর আলীকে আটক করা হয়। আটককৃত শুক্কুর স্থানীয় মোহাম্মদ জব্বারের ছেলে।

নির্মমতার শিকার রিকশাচালক আব্দুস শুক্কুর টেকনাফের নুরুল আমিনের ছেলে। বর্তমানে তিনি সদরের ঝিলংজা ইউনিয়নের পশ্চিম লারপাড়ায় ভাড়া বাসায় থাকেন।

পুলিশ সূত্র জানায়, গতকাল রবিবার (৮ আগস্ট) বেলা সাড়ে ১১ টায় শহরের বাজারঘাটায় যাত্রীর জন্য অপেক্ষা করছিল রিকশাচালক শুক্কুর। ওই সময় অভিযুক্ত শুক্কুর আলী রামু উপজেলার মিঠাছড়ির চেরাংঘর বাজারে যাবে কিনা জানতে চান। রিকশাওয়ালা যাবে জানিয়ে ২০০ টাকায় ভাড়া দাবি করেন। কিন্তু ভাড়া বেশি দাবি করেছো কেন উল্লেখ করে রিকশাওয়ালাকে মারধর করে অভিযুক্ত যুবক। প্রকাশ্য দিবালোকে কর্দমাক্ত রাস্তায় তাকে টেনেহিঁচড়ে নাজেহাল করা হয়। তখন আশপাশের লোকজন এসে রিকশাওয়ালাকে উদ্ধার করে। এ ঘটনা কেউ একজন ভিডিও করে ফেসবুকে ছেড়ে দিলে ভাইরাল হয়। এরপর ভিডিওটি দেখে পুলিশ ভুক্তভোগী ও অভিযুক্তকে শনাক্ত করে।

কক্সবাজার শহর ফাঁড়ির পুলিশ পরিদর্শক মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘ভিডিও আমাদের পুলিশ সুপারের নজরে আসলে তিনি তাৎক্ষণিক অভিযুক্তকে আটক ও ভিকটিমকে উদ্ধারের নির্দেশনা দেয়। এসপির নির্দেশনায় এক ঘণ্টার মধ্যেই অভিযুক্তকে আটক ও ভুক্তভোগীকে হেফাজতে আনি।’

কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান বলেন, ‘বাজারঘাটা থেকে চেরাংঘরের দুরত্ব প্রায় ১২ কিমি। এত দূরত্বের পথে ২০০ টাকা ভাড়া চাওয়ায় রিকশাওয়ালাকে মারধরের ঘটনা অমানবিক ও শাস্তিযোগ্য। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ধরায় কক্সবাজার সদর থানায় নিয়মিত মামলা লিপিবদ্ধ করা হচ্ছে।’