টাইগারদের হার দিয়ে শুরু টি-টোয়েন্টি সিরিজ

cricket

দ্বীপরাষ্ট্র নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৬৬ রানে হেরে গেল বাংলাদেশ। হ্যামিল্টনে টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে ৩ উইকেটে ২১০ রান তুলে স্বাগতিকরা। বাংলাদেশ সময় সকাল ৭টায় ম্যাচটি শুরু হয়। ২১১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ১৪৪ রানে থেমে যায় টাইগারদের ইনিংস।

টস হেরে অবশ্য শুরুটা ভালো করেছিল টাইগাররা। প্রথম ওভারেই নিউজিল্যান্ড শিবিরে আঘাত হানেন অভিষিক্ত স্পিনার নাসুম আহমেদ। ওভারের ষষ্ঠ বলে কিউই ওপেনার ফিল এলেনকে শূন্য রানে ফেরান তিনি। সরাসরি ভেঙে দেন তার উইকেট। পরে আরেক ওপেনার মার্টিন গাপটিলকেও আউট করেন এই বাঁহাতি। নিজের তৃতীয় ও দলীয় সপ্তম ওভারে ২৭ বলে ৩৫ রানের ইনিংস খেলে সৌম্যর হাতে ক্যাচ তুলে দেন গাপটিল।

দুই ওপেনারকে হারিয়ে বিধ্বংসী হয়ে ওঠেন তিনে ও চার নম্বরে নামা দুই কিউই ব্যাটসম্যান। বিশেষ করে ওয়ানডে সিরিজসেরা ডেভন কনওয়ে বাংলাদেশি বোলারদের ওপর চড়াও হন। উইল ইয়ংকে সঙ্গে নিয়ে তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৬০ বলে ১০৫ রান করেন কনওয়ে। ৩০ বলে ২টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৫৩ রান করে ইয়ং মেহেদি হাসানের বলে আউট হন। তবে কনওয়ে চতুর্থ উইকেটে গ্লেন ফিলিপসকে নিয়ে আরও ৫২ রান করেন। শেষ পর্যন্ত কনওয়ে ৫২ বলে ৯২ রানে অপরাজিত থাকেন। তার ইনিংসে ১১টি চার ও ৩টি ছক্কা ছিল। আর ১০ বলে ২৪ করেন ফিলিপস। নির্ধারিত ২০ ওভারে নিউজিল্যান্ড করে ২১০ রান।

২১১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ওয়ানডে সিরিজের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজেও ব্যর্থতার বৃত্তে বন্দী লিটন ও সৌম্য। টিম সাউদির বলে সাজঘরে ফেরেন লিটন (৪)। নিউজিল্যান্ড সফরে প্রথমবার সুযোগ পাওয়া নাঈম ভালো কিছুর আশা দেখালেও ইনিংস বড় করতে পারেননি। নাঈম লোকি ফার্গুসনকে চার মারার পর তার বলেই এলবিডব্লিউ হন ২৭ রানে। ১৮ বলে ৫ চারে নাঈম ঝড়ো ইনিংসটি সাজান। ষষ্ঠ ওভারে বোলিংয়ে এসে ইস শোধি তুলে নেন ২ উইকেট। সৌম্যকে (৫) ফিরতি ক্যাচে তালুবন্দি করার পর মিথুনকে বোল্ড করেন শোধি। সুইপ করতে গিয়ে বল মিস করে মিথুন ৪ রানে বোল্ড হন।

পাওয়ার প্লে’তে ৪ উইকেট হারানোর পর ইশ শোধির এক ওভারে বাংলাদেশ হারায় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মাহেদী হাসানের উইকেট। প্রথম ১০ ওভারে ৭৬ রান তুলতেই ৬ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। সপ্তম উইকেট জুটিতে সাইফ উদ্দিন ও আফিফ হোসেন ৬৩ রানের জুটি গড়েছেন। ৩৭ বলে তাদের জুটির ৫০ রান পূর্ণ হয়। ৩৩ বলে ৪৫ রান করে সাজঘরে ফেরেন আফিফ হোসেন। এরপর দলীয় ১৩৩ রানে শরিফুল ইসলাম (৫) এর উইকেট হারায় বাংলাদেশ। মোহম্মদ সাইফুদ্দিন ৩৪ বলে ৩৪ রান করে অপরাজিত ছিলেন। বাংলাদেশ তাদের নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৪৪ রান করে। একই সঙ্গে ৬৬ রানের বড় ব্যবধানে হেরে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু করলো টাইগাররা।

১৯৪৯ সালে সেরা একাদশ নিয়ে নিউজিল্যান্ড দল ইংল্যান্ড গমন করে। বার্ট সাটক্লিফ, মার্টিন ডানেলি, জন রিড ও জ্যাক কোয়ি’র ন্যায় তারকা খেলোয়াড় এ দলে ছিলেন। কিন্তু ৩ দিনের ঐ ৪ টেস্টের সিরিজ ড্রয়ে পরিণত হয়। ১৯৫১-৫২ মৌসুমে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে অংশ নেয়। ১৯৫৪-৫৫ মৌসুমে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সর্বমোট ২৬ রান করে টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বনিম্ন রান সংগ্রহ করে। পরের মৌসুমেই নিউজিল্যান্ড তাদের প্রথম টেস্ট জয় করে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত ৪ টেস্টের সিরিজটি ৩-১ ব্যবধানে পরাজিত হয় নিউজিল্যান্ড দল।