জিপিএ-৫ কম পাওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করলেন শিক্ষামন্ত্রী

গতবছর জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় ১ লাখ ৯১ হাজার ৬২৮ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ ফেলেও এবার তা কমে দাঁড়িয়েছে ৬৮ হাজার ৯৫ জনে। জেএসসি এবং জেডিসি পরীক্ষার ফলাফলে জিপিএ হিসেব করার সময় শিক্ষার্থীদের চতুর্থ বিষয়ের প্রাপ্ত নম্বর যোগ না করায় গত বছরের তুলনায় এ বছর জিপিএ-৫ এর সংখ্যা কমেছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

সোমবার (২৪ ডিসেম্বর) সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ফলাফল নিয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সরকার শিক্ষা ব্যবস্থায় নানামুখী সংস্কার কাজ করে চলেছে। এর মধ্যে উন্নত বিশ্বের ন্যায় শিক্ষার্থীদের মূল্যায়নে নিজ-নিজ প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা তৈরিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কাজ শুরু করেছে। সে লক্ষ্যকে সামনে রেখে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় কিছু বিষয়ের মূল্যায়নে ধারাবাহিক মূল্যায়ন পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। এ কাজটি পরীক্ষার্থীর নিজ নিজ প্রতিষ্ঠান করে থাকে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ধারাবাহিক মূল্যায়ন পদ্ধতি চালু হওয়ায় এ বছর জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় বোর্ডের ফল প্রক্রিয়াকরণে চতুর্থ বিষয় বিবেচনা করা হয়নি। এ কারণে গত বছরের তুলনায় এ বছর জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী কমেছে।’ চতুর্থ বিষয়ের নম্বর হিসাব করলে জিপিএ-৫ এর সংখ্যা প্রায় আগের বছরের মতই হতো বলে জানান তিনি।

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/পিএস