নীরব ব্যাংকপাড়া মতিঝিল

ছবিঃ সংগৃহীত

বাংলাদেশ সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দমিয়ে রাখতে এখনও মানুষকে ঘরে রাখা বা সামাজিক দূরত্ব রক্ষার কার্যক্রমকে প্রধান কৌশল হিসাবে নিয়েছে।

সেজন্য সাপ্তাহিক ছুটি আরও এক সপ্তাহ অর্থাৎ ৯ই এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

সুনসান নীরবতা ব্যাংকপাড়াখ্যাত মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকায়। হাজার হাজার মানুষের পদচারণায় ব্যস্ত থাকা গুলিস্তানের রাস্তায় নেই কোনো হকারের চিহ্ন। অলিখিত লকডাউনের ঘোষণায় পুরো ব্যাংকপাড়া, মতিঝিল-দিলকুশা, ফকিরেরপুল, দৈনিক বাংলা মোড়, পুরানা পল্টন, গুলিস্তান, স্টেডিয়ামপাড়া এখন পুরোপুরি স্তব্ধ।

গতকাল দুপুরে গিয়ে দেখা গেছে, ব্যাংক, বিমা, সব ধরনের আর্থিক প্রতিষ্ঠানে তেমন কোনো লেনদেন নেই। করোনাকান্ডের গল্পগুজবে সময় পার করছেন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়, সোনালী ব্যাংকের লোকাল অফিসে সঞ্চয়পত্র কিনতে এবং এর মুনাফা তুলতে গ্রাহকদের ভিড় থাকে।

সেখানে নেই কারও পদচারণা। দুপুর ১২টা পর্যন্ত সীমিত লেনদেন করতে কিছু মানুষ আসেন ব্যাংকের ক্যাশ কাউন্টারগুলোতে। গুলিস্তানে কয়েকটি পাইকারি মার্কেট রয়েছে। বিশেষ করে জুতা, মোবাইল এক্সেসরিজসহ বিভিন্ন পণ্যের বড় মার্কেট। ফুটপাথ হাজার হাজার মানুষের পদচারণায় থাকে মুখরিত। সেসব রাস্তা ও মার্কেটে কোনো লোক নেই। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত গুলিস্তানে যানবাহনের জট লেগে থাকত। এখন গুলিস্তানের সব সড়কই একদম ফাঁকা।