রেলের হাজার কোটি টাকার জমি দখলে নারী কাউন্সিলর

Railway land

রেলওয়ের হাজার কোটি টাকার জমি রয়েছে এক নারী কাউন্সিলরের দখলে। অভিযোগ উঠেছে, রাজধানীর আনন্দবাজার এলাকায় রেলওয়ের ৩ একর ৯৭ শতাংশ জমি ৩৫ বছর ধরে নিজেদের করায়ত্তে রেখেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)-এর সংরক্ষিত আসন-৫-এর নারী কাউন্সিলর সৈয়দা রোকসানা ইসলাম চামেলী ও তার পরিবার। এতে বছরের পর বছর ধরে সরকার বঞ্চিত হচ্ছে মোটা অঙ্কের রাজস্ব থেকে। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সৈয়দা রোকসানা ইসলাম চামেলী। জানা গেছে, ২০০৭ ও ২০১১ সালে দুই দফা উচ্ছেদ অভিযান চালালেও চামেলী পরিবারের কাছ থেকে জমি উদ্ধারে ব্যর্থ হয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। ২০১৪ সালে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ৩৪তম সভায় গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানি সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার সুপারিশ দিলেও তা রয়ে গেছে কেবল কাগজে কলমেই। অন্যদিকে, আদালতে একের পর এক মামলা ঠুকে দেওয়া এবং উচ্ছেদ অভিযান ঠেকানোর নাম করে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগও রয়েছে এই নারী কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে। দেশের সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের পরও জমি উদ্ধার না হওয়ায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন আইন বিশেষজ্ঞরা।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, আনন্দবাজার রেলওয়ে সুপার মার্কেট লিমিটেডের জন্য রেলওয়ের বরাদ্দকৃত ১ একর ১০ শতাংশ ছাড়া বাকি ২ একর ৮৭ শতাংশের মালিক দাবি করে ৯৬ জন একক এবং যৌথভাবে বিভিন্ন সময় রেলওয়ের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। আর এর শুরু ১৯৯৫ সালে। ২০১৪ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ রেলওয়ের বিরুদ্ধে আলহাজ হারুনুর রশীদ এবং মির্জা আশ্রাফ, মির্জা নাজমা বেগম, শাহজাদী বেগম ওয়াক্ফের ২১টি মামলার ৫টি বিচারাধীন ছিল। ১৯টি মামলা আদালত খারিজ করে দিয়েছে।

জানা গেছে, ১৯৭৫ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাক্ষরিত চিঠির একটি অংশে ‘ফুলবাড়িয়াস্থ পুরাতন রেলস্টেশনের জমিতে পূর্ত মন্ত্রণালয় অবিলম্বে উন্নয়ন কর্মসূচি গ্রহণ করিবেন’ এমন নির্দেশনা দেওয়া হয়। সে অনুসারে গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সে বছরের ১১ মার্চ ৮০০ ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীকে ৫ হাজার টাকা করে জমা দেওয়ার আদেশ দিয়ে চিঠি দেয়। মূলত এর পরই রেলওয়ের বিরুদ্ধে মামলা শুরু। কিছুদিন পর মামলা খারিজ হয়ে গেলে আবার অন্যকে দিয়ে আদালতে মামলা দেয় ওই চক্র। বছরের পর বছর ধরে এভাবে চলে আসছে মামলা। তবে সর্বশেষ ২০১৯ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি ‘আনন্দবাজার রেলওয়ে সুপার মার্কেট লিমিটেডের অনুকূলে লাইসেন্সকৃত ১.১০ একর জমির অবৈধ দখলীয় অংশ উচ্ছেদ করে প্রকৃত লাইসেন্সধারীকে বুঝিয়ে দিয়ে বকেয়া লাইসেন্স ফি গ্রহণ করতে’ বিভাগীয় ভূসম্পত্তি কর্মকর্তাকে চিঠি দেন প্রধান ভূসম্পত্তি কর্মকর্তা।

অভিযোগ রয়েছে, রেলওয়ের কিছু দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা নেপথ্যে থেকে দখলদারদের সহযোগিতা করে আসছেন। আর দখলদারদের পক্ষ হয়ে সব সমন্বয় করছেন কাউন্সিলর চামেলী। মাঝেমধ্যেই উচ্ছেদ ঠেকানোর নাম করে ওই এলাকার অন্তত ৮০০ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ওঠানো হয় ৪-৫ হাজার টাকা করে বিশেষ চাঁদা। মামলার খরচের নাম করে প্রতি মাসে নিয়মিত ওঠে দোকানপ্রতি ৫০০ এবং বছরের বিভিন্ন দিবসকেন্দ্রিক হয় কোটি টাকার বাণিজ্য। এসব বিষয়ে পুলিশ সদর দফতর, র‌্যাব সদর দফতর ও দুর্নীতি দমন কমিশনে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে আনন্দবাজার ও গোল্ডেন প্লাজায় ব্যবসা করেন এমন অন্তত ১০ জন ব্যবসায়ী এবং কয়েকজন স্থানীয় বাসিন্দা এই প্রতিবেদককে বিষয়গুলো নিশ্চিত করেছেন। ২০১১ সালের ৭ এপ্রিল শাহবাগ থানায় উচ্ছেদে বাধা দেওয়ার কারণে কাউন্সিলর চামেলীর স্বামী আবুল হোসেন টাবু, দুই ভাই, মাসহ আটজনকে এজাহারনামীয় আসামি করে মামলা হয়।

তবে ২০১৪ সালের ৯ নভেম্বর দেশের কয়েকটি জাতীয় পত্রিকায় বাংলাদেশ রেলওয়ে/পূর্বাঞ্চল কর্তৃপক্ষ বিশেষ সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে তাদের মালিকানার বিষয়টি জনসাধারণকে অবহিত করে। বিজ্ঞপ্তির একটি অংশে উল্লেখ করে, ‘ফুলবাড়িয়াস্থ নিমতলী এলাকায় ঢাকা মহানগরীর শহর ঢাকা মৌজার সিএস ১৬৮৫৫ নম্বর খতিয়ানে সিএস দাগ নম্বর ১৩৬, ১৩৮ ও ১৩৯-ভুক্ত ০৩.৯৭ একর ভূমি যা আনন্দবাজার নামে পরিচিত ভূসম্পত্তির একমাত্র মালিক বাংলাদেশ রেলওয়ে।’ বিজ্ঞপ্তির অন্য একটি অংশে বলা হয়, ওই ভূমির মালিকানাস্বত্ব দাবি করে একটি সংঘবদ্ধ জালিয়াত চক্র ও ভূমিদস্যু জালিয়াতির মাধ্যমে নিম্ন আদালত থেকে হাই কোর্টে বিভিন্ন মামলা দাখিল করে। কিন্তু প্রয়োজনীয় দলিল নিম্ন আদালতে প্রদর্শন করতে ব্যর্থ হওয়ায় মামলাগুলো বাংলাদেশ রেলওয়ের পক্ষে রায়/ডিক্রি হয়।

এ ব্যাপারে আইন বিশেষজ্ঞ ড. শাহদীন মালিক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘মামলায় রেলওয়ের অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এ অবস্থায় জমির দখল নিতে কোনো বাধা দেখছি না। চলমান মামলাগুলোর ব্যাপারে রেলওয়ের উচিত হবে অভিজ্ঞ আইনজীবীর পরামর্শ নেওয়া। একই সঙ্গে বাদীপক্ষের কাছ থেকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দাবি করা উচিত।’ তিনি আরও বলেন, ‘সরকারের সংস্থাগুলোর মধ্যে রেলওয়ে সবচেয়ে বেশি ভূসম্পত্তির মালিক। ভূমিগুলো রক্ষার জন্য যোগ্য আইন ক্যাডারের কর্মকর্তা তৈরি করা উচিত। যাতে আইনি লড়াইয়ে সহজেই জয়ী হওয়া যায়।’

এদিকে সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে, ২ একর ৮৭ শতাংশের মধ্যে রয়েছে বরিশাল প্লাজা, গোল্ডেন প্লাজা, বঙ্গ ইসলামিয়া মার্কেট, হাফেজ প্লাজাসহ একাধিক বহুতল ভবন। আরও রয়েছে কয়েকটি নির্মাণাধীন ভবন। তারা মির্জা আশ্রাফ গং ও সিরাজুল ইসলাম (চামেলীর বাবা) গংয়ের কাছ থেকে জমিগুলো কিনেছেন বলে দাবি করেছেন। তবে আশ্চর্যজনক সত্য হলো, এসব ভবন নির্মাণের জন্য রাজউকের কোনো অনুমোদন নেওয়া হয়নি। বছরের পর বছর কীভাবে এসব ভবন টিকে আছে সে নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন নগরবিদরা।

তবে পাশের আলাউদ্দিন সড়কের একাধিক বাসিন্দা বলেছেন, ‘এখানে তো আগে রেলওয়ে স্টেশন ছিল। রেলওয়ের সম্পত্তি কীভাবে ব্যক্তিগত হয়? বরিশাল প্লাজা, হাফেজ প্লাজা কিংবা গোল্ডেন প্লাজা সবই কাউন্সিলর চামেলীর অধীনে। তারা নিয়মিতভাবে চামেলীকে মাসহারা দেন। এজন্য চামেলীর পরিবার দীর্ঘদিন ধরে তাদের নিরাপত্তা দিয়ে আসছে।’

কে এই চামেলী? : খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ডিএসসিসির সংরক্ষিত ওয়ার্ডের (১৩, ১৯ ও ২০ নম্বর) কাউন্সিলর চামেলী নিজে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হলেও অতীতে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। তবে তার স্বামী আবুল হোসেন টাবু ২০ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির যুগ্মসম্পাদক ও ইউনিট সভাপতি, দেবর মো. ইউসুফ আনন্দবাজার ইউনিট বিএনপির নেতা। ভাই রফিকুল ইসলাম স্বপন ২০ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক। মা মমতাজ ইসলাম মহিলা দলের শাহবাগ থানা কমিটির সভানেত্রী। আরেক ভাই সামসুল ইসলাম লাভলু মাদকাসক্ত এবং সন্ত্রাসী কর্মকা-ের সঙ্গে জড়িত। চামেলীর বড় বোনের স্বামী মিজান মাস্টারের ভাই গিয়াস উদ্দীন ওরফে মিঠু জামায়াতের ঢাকা মহানগরীর শীর্ষ নেতা। সর্বশেষ অতিসম্প্রতি রাজধানীতে এক দিনে ৯টি বাসে অগ্নিকা-ের ঘটনায় চামেলীর ভাই স্বপন ও স্বামী টাবুকে গ্রেফতারে র‌্যাব-৩-এর একটি দল অভিযান চালিয়েছিল আনন্দবাজার এলাকায়।

যেভাবে মালিকানার দাবি : চামেলীর পরিবারের দাবি, পুরান ঢাকার মৃত মির্জা আশ্রাফ আলী গংয়ের কাছ থেকে মৃত সিরাজুল ইসলাম ৪৫ শতাংশ জমি কিনেছিলেন ১৯৭৮ সালে। ক্রয়সূত্রে তারা ওই জমির মালিক। চামেলীর বাবা মৃত সিরাজ। তবে ওই ৪৫ কাঠার নাম করে শত কাঠার ওপর জমি বিভিন্ন মানুষের কাছে বিক্রি করার অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

প্রয়াত মির্জা আশ্রাফের ছেলে মির্জা মোহাম্মদ নেহাল বলেন, ‘আমার বাবা মির্জা আশ্রাফ ১৯৮১ সালে মারা যান। ১৯৭৮ সালে আমাদের জমির কেয়ারটেকার মরহুম সিরাজুল ইসলামকে (কাউন্সিলর চামেলীর বাবা) ৫ কাঠা জমি দান করেছিলেন। তবে আমার বাবা অন্ধ হওয়ায় সিরাজুল ৫-এর জায়গায় ৪৫ কাঠা লিখে নিয়েছিলেন। বিষয়টি পরে জানাজানি হলে আমার বাবা এ ঘটনায় সিরাজুলের প্রতারণার বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন। মামলাটি এখনো বিচারধীন।’

নেহালের দাবি, তার দাদা মির্জা মোহাম্মদ তার এক কর্মচারীর মাধ্যমে তার ফুপুর কাছ থেকে এ জমিটি নিলামে খরিদ করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘এ সূত্রে আমরা এ জমির মালিক। ১৯৬২ সালে আমাদের জায়গার কিছু অংশ ফায়ার ব্রিগেড অ্যাকোয়ার করেছিল। তবে সরকার এর বিনিময়ে আমাদের ৩০ কাঠা জমি দিয়েছিল।’

এ বিষয়ে কথা হয় রেলওয়ের (পূর্ব) বিভাগীয় এস্টেট অফিসের আইন কর্মকর্তা সালাউদ্দীন আহমেদের সঙ্গে। তিবি বলেন, ‘অনেক মামলাই খারিজ হয়ে গেছে। তবে রেলওয়েকে আটকানোর জন্য ওই চক্র একের পর ভুয়া মামলা করে। কারণ ১৯২০ সালে তৎকালীন সরকার ওই জমি রেল বিভাগের জন্য অ্যাকোয়ার করে। তাহলে ওই সম্পত্তি ব্যক্তির হয় কীভাবে? রেলের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাগুলো সুপ্রিম কোর্ট, হাই কোর্ট এমনকি জজ কোর্টেও খারিজ হয়েছে। তার পরও হীন উদ্দেশ্যে মামলা ঠুকে দিচ্ছে দখলদার চক্র।’

এর আগের দিন রেলওয়ের বিভাগীয় সম্পত্তি কর্মকর্তা মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা ধাপে ধাপে চেষ্টা করে যাচ্ছি। আপাতত সমস্যাটা মামলা। নোটিস দেওয়া শুরু হবে। তবে তালিকায় কিছু সমস্যা আছে। কিন্তু শিগগিরই এ বিষয়টি নিয়ে আমরা এগোচ্ছি।’

যা বলছেন আওয়ামী লীগ নেতারা : আওয়ামী লীগ ঢাকা মহানগরী উত্তরের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীর বলেন, ‘আনন্দবাজার নিয়ে চাঁদাবাজি এবং দখল বিষয়ে আমি এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাইনি। তবে আমরা খোঁজ নেব। যত দূর জানি ওই জায়গাটি রেলওয়ের। তারা ফোর্স নিয়ে উচ্ছেদ করতেই পারে। জুজুর ভয় পাওয়া তো উচিত নয়।’ ২০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি নূর উল্লাহকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

চামেলীর বক্তব্য : দখল ও চাঁদাবাজির বিষয়ে জানতে চাইলে সৈয়দা চামেলী জানান, তার বিরুদ্ধে আসা সব অভিযোগই মিথ্যা। ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তার বিরুদ্ধে প্রপাগান্ডা চালাচ্ছে একটি মহল। তবে ৪৫ শতাংশের জমির তারা ক্রয়সূত্রে মালিক।