ভগবানকে পরানো হলো জুতোর মালা : তাও আবার ভারতে! (ভিডিও)

যে দেশে ভগবান মানেই হাজার রকমের রীতি রেওয়াজ মানাই নিয়ম, সেই ভারতেই কিনা এমন বিচিত্র ব্যাপার!

হিন্দু দেবস্থান বা মন্দিরে ঢোকার আগে ভক্তরা জুতো খুলে তবেই প্রবেশ করেন। অনেকে আবার এমনও রয়েছেন যে, রাস্তায় দাঁড়িয়ে মন্দিরের ভগবানের উদ্দেশে প্রণাম করার সময়ও চটি-জুতো খুলে রাখেন। সে দেশেই কিনা ভগবানকে উৎসর্গ করা হয় জুতো!

আশ্চর্য হওয়ার মতো ঘটনা হলেও তা একেবারেই সত্যি। এ খবর দিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যম এবেলা।

দক্ষিণ ভারতের কর্নাটকের গুলবার্গা জেলার হিন্দু দেবী লাকাম্মা। স্থানীয়রা এঁকে খুবই জাগ্রত বলে মানেন। এবং জুতোর মালা উৎসর্গ করেন। প্রায় ৬০০ বছরের পুরনো এই মন্দিরে দেবীর কোনও মূর্তি নেই। প্রথাগত কোনও নিয়মাবলিও নেই দেবীর পুজোর জন্য।

সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, কোনও এক সময়ে এখানে পশু বলি দেওয়া হতো দেবী লাকাম্মাকে খুশি করার জন্য। পরবর্তীকালে তা আইনত বন্ধ করে দেওয়া হয়। তার পর থেকেই দেবীকে জুতোর মালা দান করার রেওয়াজ শুরু হয়।

দেওয়ালির ছ’দিন পরে লাকাম্মা দেবীর পুজো হয় বলে জানা গিয়েছে এই প্রতিবেদনে। দেবীকে ভোগ দেওয়া হয় আমিষ-নিরামিষ দু‌’ধরনেরই খাবার। ভক্তদের মনোবাঞ্ছা পূরণ হলে তাঁরা জুতোর মালা নিয়ে আসেন লাকাম্মার জন্য। মন্দিরের বাইরে একটি গাছ রয়েছে, সেখানেই ঝুলিয়ে দেওয়া হয় সেই মালা।

ভক্তদের মতে, ওই সব জুতো দেবী লাকাম্মা নিজে ব্যবহার করেন এবং দুষ্টের দমন করেন। আবার অনেকের মতে, লাকাম্মা তাঁর ভক্তদের হাঁটু বা পায়ের ব্যাথা থেকে নিষ্কৃতি দেন ওই জুতো পরে।

কারণ যাই হোক না কেন, ভক্তরা তাঁদের বিশ্বাস নিয়ে থাকুন। যদিও, মন্দির সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানার জন্য ভক্তরাই প্রচেষ্ট হয়েছেন। স্থানীয় বিশেষজ্ঞদের তাঁরা অনুরোধ করেছেন, লাকাম্মা দেবী ও তাঁর মন্দির সম্পর্কে গবেষণা করতে।

ভিডিও

বাংলাদেশ সময়: ১৭৩৬ ঘণ্টা, ২৬ অক্টোবর, ২০১৭
লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/পিকে