রূপচর্চায় গোলাপের পাপড়ির ৬টি অসাধারণ ব্যবহার

গোলাপ ফুল

গোলাপ এক প্রকার সুপরিচিত ফুল যা আধুনিক মানুষের কাছে সৌন্দর্যের প্রতীক। এছাড়া ভালোবাসার প্রতীক হিসেবে সমাদৃত। গোলাপকে ফুলের রাণী বলা হয়। ভালবাসার মানুষদের এ ফুলটি উপহার দেওয়া হয়। তবে গোলাপ ফুল যে শুধুই ভালবাসার মানুষকে দেওয়া হয় এমন টা নয়। যে কাউকেই উপহার দেওয়া যায় ফুল। কিন্তু গোলাপ ফুল শুধুই উপহারের জন্য অথবা সাজ সজ্জার জন্য নয়। রূপচর্চাতেও রয়েছে এর বহু গুনাগুণ। গোলাপ ফুলের পাপড়ি দিয়ে চুল এবং ত্বক উভয়ের যত্ন নেওয়া যায়।

এমনকি গোলাপ ফুলের পাপড়ি নিয়ে প্রাচীন গ্রীসের এবং রোমানের একটি কথাও প্রচলিত আছে। তারা গোলাপের পাপড়ি ব্যাবহার করতো নিজেদের গোসলের জায়গায় সুগন্ধি হিসেবে। গোলাপ ফুলের পাপড়ির কিছু বিশেষ গুন নিচে উল্লেখ করা হলো:-

১. গোলাপ ফুলের পাপড়ি দিয়ে তৈরি গোলাপজল ত্বকে টোনার হিসেবে কাজ করে। বাইরে থেকে ঘরে ফিরে এক টুকরো তুলো গোলাপজলে ভিজিয়ে নিয়ে আলতো করে সম্পূর্ণ মুখ পরিষ্কার করে নিতে হবে। এভাবে ত্বকে জমে থাকা ময়লা, পাশাপাশি মেকআপ ভালো করে উঠে আসে।

২. গোলাপ ফুলের পাপড়িতে থাকা প্রাকৃতিক তেল ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করে। এভাবে ত্বক মসৃণ ও কোমল হতে থাকে। যাদের অনেক বেশি সংবেদনশীল তাদের জন্য গোলাপ ফুলের পাপড়িতে থাকা চিনি অনেক বেশি কার্যকরী।

৩. গোলাপ ফুলের পাপড়িতে রয়েছে ভিটামিন-সি; যা সূর্যের ক্ষতিকারক রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করে। ত্বকের জন্য মিশ্রণটি বানাতে শশার রসের সাথে গ্লিসারিন, এবং গোলাপজল মেশাতে হবে। ঘরের বাইরে যাওয়ার আগে মুখে মেখে নিতে হবে।

৪. গোলাপ ফুলের পাপড়িতে উপস্থিত অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান ব্রণ উঠার প্রবণতা দূর করে। ত্বকে মাঝে মাঝে প্রদাহ হয়, সেটিও দূর করতে পারে গোলাপের পাপড়ি। সেই সাথে ত্বকের লালচে ভাব, একজিমা এবং সোরিয়াসিস দূর করে।

৫. চোখের নিচের কালো দাগ দূর করে। এক টুকরো তুলো গোলাপজলে ভিজিয়ে নিয়ে তা চোখের নিচে কিছুক্ষন রেখে দিতে হবে। এভাবে টানা কয়েকদিন করলেই ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া যাবে।

৬. চুলের গোঁড়ায় পুষ্টি জোগায়। গোলাপের পাপড়ি চুলের ক্ষেত্রেও ব্যাবক ভূমিকা রাখে। চুলের গোঁড়ায় প্রায় সময় প্রয়োজনীয় পুষ্টি পৌঁছতে পারেনা। কিন্তু পাপড়ি তৈরি প্যাক গুলো প্রতিটি জায়গায় পৌঁছতে সক্ষম। চুলের গোঁড়ায় রক্ত চলাচল সচল করে এবং নতুন চুল গজাতে সহায়তা করে।