ইউএস-বাংলার বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার বর্ণনা দিলেন সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া ব্যক্তি

নেপালের কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ঢাকা থেকে নেপালগামী ইউএস-বাংলার বিধ্বস্ত হওয়া বিমানের জানালা ভেঙে বেঁচে ফিরেছেন নেপালের নাগরিক বসন্ত বহরা। সোমবার বিধ্বস্ত হওয়া ওই বিমানের যাত্রী ছিলেন বসন্ত। তিনি রাসইতা ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলস অ্যান্ড টুর এর একজন কর্মী হয়ে বাংলাদেশে ভ্রমণে এসেছিলেন। খবর দ্য কাঠমন্ডু পোস্ট।

বসন্ত বহরা বলেন, বিমানটি ভালোভাবেই ঢাকা থেকে কাঠমন্ডুতে আসে। কিন্তু বিমানটি যখন অবতরণ করতে যায় তখন এটি অদ্ভুত আচরণ করতে থাকে। হঠাৎ-ই বিমানে বিপুল ধোয়া উড়তে থাকে এবং আগুন ধরে যায়। আমি বিমানের জানালার পাশেই বসেছিলাম। এসময় জানালা ভেঙে বাইরে বেরিয়ে আসতে সক্ষম হই।

তিনি আরো বলেন, আমি বিমান থেকে বাইরে বেরিয়ে আসার পর কি হয়েছে আর কিছুই বলতে পারবো না। কেউ একজন আমাকে ধরে হাসপাতালে নিয়ে এসেছে। আর সেখান থেকে আমার কিছু বন্ধু আমাকে নর্ভিকে নিয়ে এসেছে। আমি আমার মাথায় ও হাতে কিছুটা ব্যাথা পেয়েছি কিন্তু দুর্ঘটনায় বেঁচে ফেরা ভাগ্যবানদের মধ্যে আমি অন্যতম।

বসন্ত বহরাসহ ১৬ জন নেপালি অন্যান্য ট্রাভেলস এজেন্সির পক্ষ থেকে বাংলাদেশে বিমান সেবার উপরে প্রশিক্ষণের জন্য এসেছিলেন। দুপুর ১২টা ৫১মিনিটে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ৬৭জন যাত্রী ও চারজন ক্রুসহ মোট ৭১ জনকে নিয়ে ইউএস-বাংলার এ বিমানটি ছেড়ে যায়।

নেপালের পর্যটনমন্ত্রী সুরেশ আচার্যের বরাত দিয়ে কাঠমন্ডু পোস্টের খবরে বলা হয়েছে, ঘটনাস্থল থেকে ১৭ জন আহত যাত্রীকে আহতাবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অন্যদিকে ত্রিভূবন বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের মুখ্পাত্র প্রেমনাথ ঠাকুর বলেছেন, বিমানবন্দরের ক্যামেরায় দেখা গেছে, বিমানটি অবতরণ করার সময় এর গায়ে আগুন ধরে যায়। এরপর বিমানটি বিমানবন্দরের কাছাকাছি একটি মাঠে বিধ্বস্ত হয়। এ সময় সেখান থেকে প্রচুর কালো ধোয়াও উড়তে দেখায় যায়। একইসঙ্গে তাড়াহুড়া করে যাত্রীদের বিমান থেকেও বেরিয়ে আসতে দেখা গেছে।

ইউএস-বাংলার মোট আটটি বিমান রয়েছে। এর মধ্যে চারটি ড্যাশ এইট ও চারটি বোয়িং। তবে একটি ড্যাশ এইট নষ্ট থাকার কারণে কিছুদিন যাবত সেটি হ্যাঙ্গারে পড়ে রয়েছে।

দেশের বিভিন্ন গন্তব্য ছাড়াও কোলকাতা, কাঠমান্ডু, ব্যাংকক, সিঙ্গাপুর, দোহা এবং মাসকট রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করে আসছে ইউএস বাংলা। এছাড়া আগামী এপ্রিল থেকে চীনের গুয়াংঝু শহরে ফ্লাইট পরিচালনার প্রস্তুতি নিচ্ছিলো ইউএস-বাংলা।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৪০ ঘণ্টা, ১২  মার্চ, ২০১৮

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/এসএনবি