গণমাধ্যমের দায়বদ্ধতা বাড়াতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

ছবিঃ ফোকাস বাংলা (ফাইল ছবি)

গণমাধ্যম তাদের লাভ যেমন দেখবে, সমাজের প্রতি তাদের দায়বদ্ধতার বিষয়টাও ভাববে। বুধবার বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল মালিকদের সংগঠন, অ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্স, অ্যাটকোর নেতাদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতের সময় একথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান, অ্যাটকোর প্রেসিডেন্ট সালমান এফ রহমান ও ভাইস প্রেসিডেন্ট মোজাম্মেল বাবু এবং প্রধানমন্ত্রী তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী। এ সময় প্রধানমন্ত্রী প্রযুক্তির ব্যবহারের সুফল ও কুফল তুলে ধরে সবাইকে সচেতন থাকার পরামর্শ দেন। সেই সঙ্গে প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে দেশকে বিকশিত করার পাশাপাশি শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতির বিকাশের জন্য গণমাধ্যমের সহযোগিতা চান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গণমাধ্যমগুলো তাদের লাভের কথা যেমন চিন্তা করবে, পাশাপাশি সমাজের প্রতিও তাদের কিছু দায়িত্ব আছে সেটাও ভেবে দেখবে। সমাজের প্রতি দায়িত্বটাই কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ণ কারণ মানুষ বিনোদনের ক্ষেত্রে হিসেবে টেলিভিশন বা রেডিওতেই চোখ রাখে বা শুনে থাকে। তাই গণমাধ্যমগুলোর উচিত শিক্ষণীয় বিষয়গুলোকে সেখানে তুলে ধরা।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের উন্নয়নের জন্য সরকার সুনিদিষ্ট পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে। আজকে গণমাধ্যম যেমন সংবাদপত্র, সরকারি ও বেসরকারি টিভি, রেডিও এমনকি আমরা কমিউনিটি রেডিওর’ও অনুমোদন দেয়া শুরু করেছি।

এতে একদিকে যেমন ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার ঘটেছে। সেই সঙ্গে ঐ অঞ্চলের মানুষের সুযোগ সুবিধাসহ কর্মসংস্থানের সুযোগ ঘটেছে। সেই সঙ্গে বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের পথ তৈরি হয়েছে।

এই ভাবে আমরা সারা বাংলাদেশে উন্নয়নের জন্যে বিভিন্ন ক্ষেত্র উন্মোচন করেছি।’

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/কেএস