‘আবার ক্ষমতায় এলে প্রতি বিভাগে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হবে’

আবার ক্ষমতায় এলে প্রতি বিভাগে একটি করে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।বৃহস্পতিবার সকালে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক হাজার শয্যাবিশিষ্ট সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতালের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে এ কথা বলেন তিনি। একই সঙ্গে তিনি সেন্টার অব এক্সিলেন্স প্রকল্পের স্থাপনাগুলোও উদ্বোধন করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণের দোঁড়গোড়ায় সব ধরনের সেবা পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছে এ সরকার। আমরা চাই আমাদের দেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, সেভাবেই এগিয়ে যাক। আজ অর্থনৈতিকভাবে আমরা যথেষ্ট সাবলম্বিতা অর্জন করেছি। বাংলাদেশ এখন বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য বাংলাদেশ যেন একটি উন্নত দেশ হয়, তারা যেন সুন্দর করে বাঁচতে পারে। সেই লক্ষ্য এবং পরিকল্পনা নিয়েই আমরা কাজ করছি।’

এ সময় বিএসএমএমইউ’কে আন্তর্জাতিক মানের হাসপাতাল হিসেবে গড়ে তুলতে চিকিৎসকদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাসও দেন প্রধানমন্ত্রী।

২০০৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দ্বিতীয়বার রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহণ করার পর এই বিশ্ববিদ্যালয়কে সেন্টার অব এক্সিলেন্সে পরিণত করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। ২০১২ সালে বর্তমান হাসপাতালের উত্তর পাশের প্রায় ১২ বিঘা জমির বন্দোবস্ত দেন। দক্ষিণ কোরিয়া সরকারের সহায়তায় এই ৩.৮ একর জমির ওপর নির্মিত হবে সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল।

২০১৬ সালে ১৩৬৬ কোটি টাকা ব্যয়ের এই প্রকল্পের অনুমোদন দেয় একনেক। ১৩ তলা হাসপাতালটিতে থাকবে ১ হাজার শয্যা। এই হাসপাতালে সর্বাধুনিক চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার জন্য ৮০ জন চিকিৎসক, ৩০ জন নার্স ও ১০ জন কর্মকর্তাকে কোরিয়ায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়কে সেন্টার অব এক্সিলেন্সে পরিণতকরণ দ্বিতীয় পর্যায় প্রকল্পের কাজ নির্ধারিত সময়েই সম্পন্ন হয়েছে। প্রকল্পের আওয়তায় ইতিমধ্যে কেবিন ব্লকের ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ, পাঁচতলা পর্যন্ত দু’টি সর্বাধুনিক বহির্বিভাগ নির্মাণ, পাঁচতলাবিশিষ্ট ডক্টরস ডরমেটরিস নির্মাণ, সর্বাধুনিক মেডিকেল কনভেনশন সেন্টার এবং পাঁচতলাবিশিষ্ট অনকোলজি ভবন নির্মাণ কাজ শতভাগ শেষ।

এ প্রকল্পের মোট ব্যয় নির্ধারিত ছিল ৫২৬ কোটি টাকা। নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ হলেও ২০ কোটি টাকা সাশ্রয় হয়েছে।

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/পিএস