অশুভ শক্তির বিনাশ কামনায় মঙ্গল শোভাযাত্রা

বাংলা বর্ষবরণের অন্যতম অনুষঙ্গ হয়ে উঠেছে মঙ্গল শোভাযাত্রা। নানা প্রতীক, চিত্র আর মুখোশের মাধ্যমে সেখানে অশুভ শক্তির বিনাশ কামনা করা হয়; প্রার্থনা করা হয় সত্য, সুন্দর এবং মঙ্গলের জন্য।

রোববার (১৪ এপ্রিল) সকাল ৯টায় শুরু হচ্ছে মঙ্গল শোভাযাত্রা। শোভাযাত্রা চারুকলার সামনে থেকে শুরু হয়ে শাহবাগ মোড় ঘুরে শিশুপার্কের সামনে দিয়ে ঘুরে আবার চারুকলায় এসে শেষ হবে। মঙ্গল শোভাযাত্রা এবার মঙ্গল শোভাযাত্রা আয়োজনের দায়িত্বে রয়েছে চারুকলা অনুষদের ২১তম ব্যাচ।

ব্যাচের শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, টানা এক মাস ধরে চলছিল প্রস্তুতি। পহেলা বৈশাখের মঙ্গল শোভাযাত্রা উদযাপনে পূর্ণতা এনেছে তাদের বানানো প্রতিকৃতিগুলো। মঙ্গলের এ যাত্রাকে সফল করতে প্রস্তুত তারা।

শেষ সময়ে শোভাযাত্রায় অংশ নিতে চারুকলার সামনে অবস্থান নিয়েছে শত শত মানুষ। শামিমা ইসলাম নামে এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী বলেন, মঙ্গল শোভাযাত্রা বাঙালি জাতির উৎসবের অন্যতম অনুষঙ্গ হয়ে উঠেছে। প্রতিবছর শোভাযাত্রায় অংশ নেই। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। এ অনুষ্ঠান এক ভিন্ন আমেজ তৈরি করে।

মূলত এ আয়োজনকে কেন্দ্র করেই আবর্তিত হয় রাজধানীর বৈশাখ বরণের কার্যক্রম। আর তাই এ উৎসবকে সফল করতে গত এক মাস নিরলস পরিশ্রম করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের প্রায় ৫০০ শিক্ষার্থী। শোভাযাত্রার জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে পাখি, বাঘ, বক, ঘোড়া, উল্টা কলসি, পেঁচা, কাঠঠোকরাসহ বিভিন্ন  প্রতিকৃতি।