বিএনপি ছাড়া অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে না: সিইসি

ফাইল ছবি

বিএনপি ছাড়া নির্বাচন হয় কী করে? কখনই না। অবশ্যই রাজনৈতিক অঙ্গণে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে রয়েছে বিএনপি। তাদের ছাড়া অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হবে না। এটা আগেও বলেছি, এখনও বলছি। শুক্রবার (০২ ফেব্রুয়ারি) সকালে নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদা সাংবাদিকদের একথা বলেন। এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, জাতীয় নির্বাচনের পরিবেশ ভালো রয়েছে। মামলা হলে তা কোর্টের ব্যাপার। আইনের ব্যাপারে তো আমাদের বলার কিছু নেই।

বিএনপিকে নির্বাচনের বাইরে রাখার চক্রান্ত করছে সরকার’ বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কেএম নুরুল হুদা বলেন, ‘আমরা সব সময় বলছি নিরপেক্ষ থাকবো। সব দল একই সুযোগ-সুবিধা পাবে। তবে নির্বাচনী মাঠে কোন দল কী প্রচারণা করবে তা তাদের বিষয়। আমরা সব সময় বলছি সব দল নির্বাচনে আসুক। আমরা অনুরোধ করছি।

২০১৯ সালের জানুয়ারির মধ্যে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। সরকারের মন্ত্রী-এমপিরাও বিভিন্ন বক্তব্যে বলছেন, জানুয়ারির আগে অর্থাৎ ডিসেম্বরের শেষ দিকে জাতীয় নির্বাচন হবে। এদিকে স্থগিত হয়ে যাওয়া ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনের বিষয়ে সিইসি বলেন, আদালত স্থগিতাদেশ তুলে দিলেই ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে সকালে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের পক্ষে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ।

এ সময় সিইসি কেএম ‍নুরুল হুদা বলেন, ৫ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময়। মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ৭ ফেব্রুয়ারি। অন্য কোনো প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল না করলে আবদুল হামিদকেই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হবে।

আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫১৫ ঘণ্টা, ০২ মার্চ , ২০১৮
লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/কেএনবি