শ্রীলঙ্কায় সিরিজ বোমা হামলা, বাংলাদেশে সতর্ক অবস্থানে পুলিশ-র‌্যাব

শ্রীলঙ্কায় ইস্টার সানডের উৎসবে গির্জা ও হোটেলে ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় বাংলাদেশেও আগাম সতর্কতামূলক অবস্থান গ্রহণের ইঙ্গিত দিয়েছে পুলিশ। এরই অংশ হিসেবে পুলিশের ফিল্ড কমান্ডারদের (এসপি/ডিসি) সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ সদর দফতর।

রবিবার (২১ এপ্রিল) বিকেলে বাংলাদেশ পুলিশ হেড কোয়ার্টার্সের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি মিডিয়া) মো. সোহেল রানা এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘শ্রীলঙ্কায় হামলার ঘটনার পর নিরাপত্তা জোরদার কিংবা কোনও হুমকি আছে- তা নয়। শুধুমাত্র শবে বরাত ও ইস্টার সানডে উপলক্ষে নিরাপত্তা জোরদার করার নির্দেশ ছিল। কিন্তু শ্রীলঙ্কায় এত বড় সিরিজ বোমা হামলার পর বাংলাদেশেও আগাম নিরাপত্তা জোরদারের অংশ হিসেবে নতুন করে আজ এ নির্দেশনা দেয়া হলো।’ 

তিনি জানান, ‘শবে বরাত, ইস্টার সানডে ঘিরে এবং একইসঙ্গে শ্রীলঙ্কায় হামলার পরিপ্রেক্ষিতে দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কে চেকপাস্ট বসানো হবে। সন্দেহজনক কাউকে মনে হলে তল্লাশি করা হবে। এতে জনগণের ভয় পাওয়ার কোনও কারণ নেই।’

এ বিষয়ে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইং এর পরিচালক কমান্ডার মোহাম্মদ মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ‘আমরা সব সময়ই নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করে থাকি। এবারও পবিত্র শবে বরাত ও স্টার সানডে উপলক্ষে সারা দেশে র‍্যাবের বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে।’

শ্রীলঙ্কায় হামলার ঘটনায় বাংলাদেশেও এ ধরনের হামলার কোনও আশঙ্কা কিংবা হুমকি আছে কি না- জানতে চাইলে মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ‘যখন পার্শ্ববর্তী কোনও দেশে এ ধরনের ঘটনা ঘটে তখন নিরাপত্তা ব্যবস্থা একটু জোরদার করতেই হয়। আমরা এর আগেও তা করেছি, এখনও নিরাপত্তা ব্যবস্থা একটু জোরদার করা হচ্ছে।’

রবিবার (২১ এপ্রিল) স্থানীয় সময় সকাল পৌনে ৯টার দিকে শ্রীলঙ্কার তিনটি গির্জা ও তিনটি হোটেলে সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অন্তত ১৬০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও কমপক্ষে ৫ শতাধিক লোক। আহতদের মধ্যে ৩ শতাধিক লোককে জরুরি চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তাদের অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে দেশটির চিকিৎসকরা। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। 

এদিকে ভয়াবহ এই হামলা পর শ্রীলঙ্কায় আগামী ১২ ঘণ্টার জন্য জরুরি অবস্থা জারি করেছে সরকার। হামলা চালানো এলাকাগুলোতে বিপুল সংখ্যক সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।