‘রোহিঙ্গাদের জন্য সেইফ জোন খোঁজা হচ্ছে’

রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশ একটি ‘সেফ জোন’ প্রতিষ্ঠার উপায় খুঁজছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। রোববার দুপুরে হোটেল ইন্টার কন্টিনেন্টালে মানবাধিকার বিষয়ক এক সেমিনারে এ কথা জানান তিনি।

সেমিনারের উদ্বোধনী পর্ব শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের জন্য রাখাইনে সেফজোন তৈরি করতে হবে। আমরা এটা নিয়ে নতুন করে কাজ করছি। সেফজোনে ভারত, চীনসহ আশিয়ান দেশের সদস্যরা সহযোগিতা দিতে পারে।’

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় না দিলে সেখানে গণহত্যা হতো। আর সেটা হলে বিশ্বনেতারা মুখ দেখাতে পারতেন না। মানবাধিকার ইস্যুতে বাংলাদেশ বিশ্বের কাছে রোল মডেল।’

সরকার মানবাধিকার রক্ষায় সচেষ্ট জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘রোহিঙ্গা পুনর্বাসন দীর্ঘায়িত হলে বাংলাদেশে উগ্রপন্থার সৃষ্টি হতে পারে।’

দিল্লিতে বাংলাদেশ ও ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের পঞ্চম যৌথ পরামর্শক কমিশন বা জেসিসি’র বৈঠক শেষে শনিবার দেশে ফেরেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। এ সময়, ভারত সফর নিয়ে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে, ভারত সফর সফল হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘সেখানে খুব আন্তরিক ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে দুই দেশের মধ্যে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

ভারতের সঙ্গে তিস্তা নদীর পানিবন্টনসহ আরও ৫৪টি অভিন্ন নদীর পানিবন্টন নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সেই সাথে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে ভারতের সাহায্য চাওয়া হয়েছে। তারা প্ল্যান করবে এ সমস্যা সমাধানে কিভাবে তারা বাংলাদেশের পাশে থাকবে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন আরও জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সঙ্গে বৈঠকে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদে নিযুক্ত হওয়ার পর ড. এ কে আব্দুল মোমেনের এটাই প্রথম বিদেশ সফর।

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/কেএস