পলাশের কাছ থেকে ৭০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া: যা বললেন সিমলা

অভিনেত্রী সিমলা বিমান ছিনতাই চেষ্টার ঘটনায় অভিযুক্ত নিহত পলাশের কাছ থেকে ৭০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন, এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য পায় তদন্ত কর্মকর্তারা। টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত এই অভিনেত্রী সেই বিষয়ে পুরোপুরি খোলাসা করেননি।

নিহত পলাশের কাছ থেকে ৭০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে এ চিত্রনায়িকা সিমলা,’পলাশ মারা গেছে। এই নিয়ে আমি কথা বলতে চাই না। কারণ  ও আমার কেউ না।’

তিনি বর্তমানে ভারতের মুম্বইয়ে রয়েছেন। তদন্তের এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে আসা বিষয়ে সিমলা বলেন, যারা তদন্ত করছেন তারা তদন্ত করুক। তদন্ত  যখন শেষ হবে তখনইতো আপনারা জানতে পারবেন বিষয়টি। আমার কিছু বলার নেই এখানে।

যারা তদন্ত করছেন তাদেরকে প্রশ্ন করুন। আমাকে প্রশ্ন করছেন কেন? আমি এটার সঙ্গে রিলেটেড না। আমি এ ব্যাপারে আর কোনো কথা বলতে চাই না।

এদিকে বিমান ছিনতাই চেষ্টার ঘটনায় সম্প্রতি চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছেন তদন্ত সংশ্লিষ্টরা। ঘটনার নেপথ্যে সিমলার সঙ্গে পলাশের বিচ্ছেদের ঘটনাই শুধু ছিল না, তার কাছ থেকে ৭০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার বিষয়ও ছিল। বিভিন্ন জনের কাছ থেকে ধার-দেনা করে এ অর্থ সিমলাকে দিয়েছিলেন পলাশ। পলাশের বাবা-মাসহ অন্তত ১৬ জনের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা, চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের পরিদর্শক রাজেশ বড়ুয়া।

তিনি জানিয়েছেন, চিত্রনায়িকা সিমলা বর্তমানে একটি সিনেমায় শুটিং করার নামে ভারতে অবস্থান করছেন। দেশে ফিরতে বিলম্ব করছেন তিনি। রাজেশ বড়ুয়া আরো বলেন, গত ২৪শে ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় বিমানবন্দরে কমান্ডো অভিযানে পলাশ আহমেদ নিহত হওয়ার সময় তার নাম-ঠিকানা জানা যায়নি। তখন তাকে বলা হচ্ছিল নায়িকা সিমলার প্রেমিক হিসেবে।

তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, পলাশ লন্ডন পাঠানোর নাম করে বিভিন্নজনের কাছ থেকে প্রায় ৭০ লাখ টাকা সংগ্রহ করেছিলেন। এ টাকা সিমলার হাতে তিনি তুলে দিতে বাধ্য হয়েছিলেন। সিমলার সঙ্গে প্রভাবশালী কিছু ব্যাক্তিরও সুসম্পর্ক ছিল, যার কারণে একটা সময় পর সিমলার কাছে যেতে পারছিলেন না পলাশ। আর তারপরই বিমান ছিনতাই চেষ্টার মতো কাণ্ড ঘটান তিনি। উল্লেখ্য, পলাশ শখের বসে নাটক ও স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করতেন। সে সূত্রে সিমলার সঙ্গে তার পরিচয় হয়। একসময়  বিয়েও করেন তারা। কিন্তু কয়েকমাসের মধ্যেই তাদের ডিভোর্স হয়ে যায়।