বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে টেলিযোগাযোগ

Telecommunications

দক্ষিণাঞ্চলের ছয় জেলা ও ৪২টি উপজেলার সাথে দেশের বেশীরভাগ এলাকার টেলিযোগাযোগ মঙ্গলবার দুপর ৩টার পূর্ববর্তি ৪৮ঘন্টারও বেশী সময় ধরে বন্ধ রয়েছে। এমনকি বিটিসিএল-এর ইন্টারনেট পরিসেবাও বিপর্যস্ত। বিটিসিএল কতৃপক্ষের উদাশীনতা আর অবহেলায় এ অঞ্চলের জেলা ও উপজেলাগুলোর মধ্যে টেলিযোগাযোগও বন্ধ।

রবিবার দুপুর থেকে বরিশাল মাইক্রোয়েভ স্টেশনের সাথে খুলনা ট্রাঙ্ক এক্সেঞ্জ-এর লিংক-এর গোলযোগের কারনে পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছেনা বলে জানা গেলেও গত ৪৮ ঘন্টায় বরিশাল মাইক্রোয়েভ ও কেরিয়ার বিভাগের ডিজিএম-এর সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। বিষয়টি নিয়ে বরিশাল টেলিযোগাযোগ অঞ্চলের জিএম-এর সাথে একাধীকবার যোগাযোগ করা হলে তিনি বার বারই তাদের ‘চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে’ বলে জানালেও সংকটের সমাধান হয়নি।

তবে সোমবার রাত ১০টার দিকে দক্ষিণাঞ্চলের সাথে ঢাকার টেলিযোগোযোগ আংশিক পূণর্বহাল হলেও দেশের অন্য কোথাও ডায়াল করে কথা বলতে পারছেন না দক্ষিণাঞ্চলের টেলিফোন গ্রাহকগন। এরফলে দক্ষিণাঞ্চলের প্রায় ৪৩ হাজার ধারন ক্ষমতার টেলিফোন এক্সেঞ্জগুলোর প্রায় ১৬ হাজার গ্রাহক এখন দেশের কোথাও কথা বলতে পারছেন না।

এমনকি রবিবার দুপুর ১টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বরিশাল মহানগরীর ৬ দিয়ে শুরু এক্সেঞ্জটির টেলিফোনে অন্য এক্সেঞ্জ-এর গ্রাহকগন কথা বলতে পারেন নি কারিগরি ত্রুটির কারনে। এনডব্লিউডি ব্যাবস্থা সহ ৬দিয়ে শুরু এক্সেঞ্জটির কারিগরি ত্রুটির বিষয়টিও দায়িত্বশীল প্রকৌশলীগন জানতে পারেন গ্রাহকদের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে।

তবে গতকাল দিনভর বরিশাল টেলিযোগাযোগ অঞ্চলের জিএম-এর সাথে তার সেল ফোন ও অফিসের ল্যান্ড ফোনে যোগোযোগের চেষ্টা করেও তা সম্ভব হয়নি। তিনি সারাদিনই মিটিং-এ আছেন বলে তার একান্ত সহকারী জানিয়েছেন।