সৌদি যুবরাজের দুই ঘনিষ্ঠ ব্যক্তির বিরুদ্ধে তুরস্কের গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের ঘনিষ্ঠ দুই সৌদি নাগরিকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেছে তুরস্ক।

গতকাল বুধবার ওই দুই সৌদি নাগরিকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদন করেছেন ইস্তাম্বুলের চিফ প্রসিকিউটর। আদালতে দাখিল করা আবেদনপত্রে উল্লেখ করা হয়, খাশোগি হত্যায় জড়িত ও পরিকল্পনাকারীদের মধ্যে এই দুজন হলেন অন্যতম। তারা হলেন, সৌদি যুবরাজের গোয়েন্দা শাখার উপপ্রধান আহমাদ আল আসিরি এবং যুবরাজের মিডিয়া উপদেষ্টা সৌদ আল কাহতানি।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আহমাদ আল আসিরিকে প্রায়ই সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের সঙ্গে বিভিন্ন রুদ্ধদ্বার বৈঠকে দেখা যেত। তাছাড়া সালমানের বিদেশ সফরসঙ্গী হিসেবেও সবসময় দেখা যেত তাকে। আর সৌদ আল কাহতানি যুবরাজের অন্যতম প্রধান একজন পরামর্শক।

এদিকে জামাল খাশোগিকে হত্যার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে সৌদি আরব যে পাঁচজন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাকে আটক করেছে তাদের মধ্যেও আহমাদ আল আসিরি ও কাহতানির নাম রয়েছে। খাশোগি হত্যাকাণ্ডের পর রিয়াদ তা স্বীকার করে ওই দুজনকে বহিষ্কার করে।

শুরু থেকেই তুরস্কের তদন্ত কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, গত ২ অক্টোবর ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে খাশোগিকে হত্যা করতে সৌদি যুবরাজ তার দেহরক্ষীসহ ১৫ সদস্যের কিলিং স্কোয়াডকে তুরস্কে পাঠানো হয়। খাশোগি সেখানে প্রবেশের পরই তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর তার মরদেহ টুকরো টুকরো করে তা নিশ্চিহ্ন করতে এসিডের মাধ্যমে গলিয়ে ফেলে। আর এর জন্য মাত্র সাত মিনিট সময় নেন তারা। পুরো ঘটনাটির একটি অডিও তুরস্কের তদন্ত কর্মকর্তারাদের কাছে আছে বলে দাবি করেছেন তারা।

খাশোগি নিখোঁজ হওয়ার ১৭ দিন পর নানা টালবাহানার পর সৌদি অ্যাটর্নি জেনারেল শেষ পর্যন্ত স্বীকার করতে বাধ্য হন খাশোগিকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। সম্প্রতি সৌদি কর্তৃপক্ষ খাশোগি হত্যায় জড়িত ১১ ব্যক্তিকে অভিযুক্ত করেন। এদের মধ্যে পাঁচ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে তারা।

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/পিএস