হুইল চেয়ার ঠেলে স্বামীকে মসজিদে নিয়ে যেতেন হুসনে আরা

স্বামীর হুইল চেয়ার ঠেলে নিউজিল্যান্ডে ক্রাইস্টচার্চের আল নূর মসজিদে নিয়ে যেতেন  অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীর গুলিতে নিহত হুসনে আরা পারভীন (৪২)। স্বামী ফরিদ উদ্দিন মুসলিম কমিউনিটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

জুমার নামাজের আগে ইমাম সাহেব আরবীতে যে খুতবা পড়তেন, ফরিদ উদ্দিন তা ইংরেজীতে অনুবাদ করে মুসল্লিদের শোনাতেন। ফলে ফরিদ উদ্দিন পক্ষাঘাতগ্রস্ত হওয়া সত্বেও প্রতি শুক্রবার মসজিদে যাওয়াটা তার জরুরি ছিলো। প্রতি শুক্রবার এলেই স্বামীর হুইল চেয়ার ঠেলে মসজিদে নিয়ে যেতেন হুসনে আরা পারভীন। আবার দুজনে নামাজ আদায় করে পুনরায় হুইল চেয়ার ঠেলে এক সাথে বাসায় ফিরতেন। তবে এবার স্বামী ফিরলেও স্ত্রী হুসনে আরা পারভীন ফিরেছেন লাশ হয়ে।

নিহত হুসনে আরা পারভীনের ভাসুর মঈন উদ্দিন জানান, শুক্রবার (১৫ মার্চ) বিকেলে টেলিফোনে ভাইয়ের সাথে কথা বলে জানতে পারেন হুসনে আরা পারভীন সন্ত্রাসীর গুলিতে নিহত হয়েছেন। দীর্ঘ প্রায় ২৮ বছর ধরে ফরিদ উদ্দিন নিউজিল্যান্ডে আছেন। তিনি প্রথমে ভিজিট ভিসায় নিউজিল্যান্ডে যান এবং পরে সে দেশের নাগরিকত্ব লাভ করেন। ফরিদ উদ্দিন সেখানে মুসলিম কমিউনিটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। প্রতি শুক্রবার ফরিদ আল-নূর মসজিদের ইমামের আরবি খুতবা পাঠ এর সময় (ইংরেজীতে) অনুবাদ করে মুসল্লিদের শোনান।

১৯৯৪ সালে ফরিদ উদ্দিন আহমদের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন হুসনে আরা পারভীন। বিয়ের কয়েক বছর পর তারা চলে যান নিউজিল্যান্ডে। ২০০৯ সালে সর্বশেষ তারা বাংলাদেশে এসে ছিলেন। মুলত ফরিদ উদ্দিন অসুস্থ হওয়ার পর থেকে দেশে যোগাযোগ কমে গেছে। হুসনে আরার মৃত্যুতে তার স্বামী ও বাবার বাড়িতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।