যেসব শর্ত পূরণ না হলে ইবাদত কবুল হবে না

ইবাদত কবুল হলে সফলতা সুনিশ্চিত। সুতরাং মানুষের উচিত এমনভাবে আমল করা যার ফলে মানুষের ইবাদত তথা সব আমল কবুল হয়। আর তা আল্লাহর দরবারে গ্রহণযোগ্য করতে ৪ শর্ত পূরণ করতে হবে।

যে ৪টি শর্ত পূরণ করতে না পারলে মানুষের কোনো আমলই আল্লাহর কাছে কবুল হবে না। এ ৪টি শর্তের মধ্যে ২টি হলো আমল বা ইবাদত করার আগে আর বাকি দু’টি আমলের মধ্যে পূরণ করতে হবে। আর তাহলো-

ইবাদত বা আমলের আগে-
>> ইলম
ইলম বা জ্ঞান ছাড়া মানুষের কোনো আমল সহিহ-শুদ্ধ হওয়া শুধু কঠিনই নয় বরং অসম্ভব। মানুষের সেই আমলই কবুল যা বিশুদ্ধ পদ্ধতিতে করা হয়।

>> নিয়ত
নিয়তের পরিশুদ্ধতা ছাড়া কোনো আমলের প্রতিদানই পাওয়ার যোগ্য নয়। আবার এমন অনেক আমল আছে যা নিয়ত ব্যতিত কবুলই হয় না। যে কারণে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তার উম্মতদের লক্ষ্য করে উল্লেখ করেছেন-
‘নিশ্চয় নিয়ত অনুযায়ী মানুষ আমলের প্রতিদান পেয়ে থাকে।’

ইবাদত বা আমলের মধ্যে-

>> ধৈর্য
আমল গ্রহণযোগ্য হওয়ার আরেকটি অন্যতম উপায় হলো ধৈর্যের সঙ্গে তা সম্পাদন করা। আমল বা ইবাদত করতে গিয়ে অস্থিরতা বা তাড়াহুড়ো করা যাবে না। বরং আমল কবুলের জন্য সন্তুষ্টচিত্তে ধৈর্যের সঙ্গে আমল করাই জরুরি।

>> ইখলাস বা একনিষ্ঠতা
মানুষের কোনো ইবাদত বা আমলই ইখলাস ছাড়া কবুল হয় না। আমল বা ইবাদত গ্রহণযোগ্য হওয়ার অন্যতম শর্তই হলো তা একান্ত মনোযোগের সঙ্গে শুধুমাত্র আল্লাহ তাআলার জন্য করা।

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, আমল বা ইবাদত করার আগেই সে আমল বা ইবাদত সম্পর্কে জেনে নেয়া এবং ইবাদতের বিশুদ্ধ নিয়ত করা। অতঃপর ইবাদত করার সময় তা মনোযোগের সঙ্গে পূর্ণ ইখলাসের সঙ্গে ধিরস্থিরভাবে ধৈর্যের সঙ্গে তা আদায় করা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে উল্লেখিত ৪টি শর্তের দিকে লক্ষ্য রেখে ইবাদত বা আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।