বন্ধুকে খুন করে রক্তপান, অতঃপর…

ভ্যাম্পায়ার থেকে জাল ডাক্তার। ডাক্তারি পাশের কোনও সার্টিফিকেট ছিল না। কিন্তু দিব্যি চিকিৎসকের কাজ পেয়েছিলেন এক হাসপাতালে। প্রায় দুই দশক আগে স্কুলের সহপাঠীকে খুনের অভিযোগ। ভ্যাম্পায়ারের মতো সহপাঠীকে খুন করে তার রক্তপান করেন তিনি।

গত বছর নভেম্বর মাসে এক হাসপাতালে প্রাথমিক ডাক্তার হিসেবে কাজ শুরু করেন। এবার জাল সার্টিফিকেট ও অতীতে এ রকম একটি ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার করা হল ভ্যাম্পায়ার ডাক্তারকে। ঘটনাটি রাশিয়ার উরালস সিটির শেলাবিনস্কের।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ৩৬ বছরের ওই ব্যক্তির নাম বরিস কোন্দ্রাশিন। ১৯৯৮ সালে, অর্থাৎ ২০ বছর আগে তিনি নিজেকে ভ্যাম্পায়ার হিসেবে ভাবতেন। খেলতে খেলতে এক সহপাঠী ও বন্ধুকে খুন করে দেহ টুকরো টুকরো করে কেটে তার রক্তপান করেন। ২০০০ সালে একটি পাভলভে (মানসিক চিকিৎসা কেন্দ্র) পাঠানো হয় বরিসকে। সেখানে তার হোমিসিডাল সিজোফ্রেনিয়ার চিকিৎসা চলে।

চিকিৎসকদের তিনি জানান, অবচেতন মনে কীভাবে খুন করে ফেলেছেন, তা বুঝতে পারেননি তিনি। প্রায় দশ বছর চিকিৎসা চলার পর ছাড়া পান বরিস। কীভাবে হাসপাতালের জাল সার্টিফিকেট ভাঁড়িয়ে সেখানে ঢুকেছিলেন, তা জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

হাসপাতালের পক্ষ থেকে জানানো হয়, প্রাথমিক চিকিৎসক হিসেবে তাকে নিয়োগ করা হয়েছিল। সেখানে রোগীদের মদ্যপান ও ধূমপানবিরোধী প্রচারণা করা ছিল তার কাজ। কীভাবে যোগব্যায়ামের মাধ্যমে উপকার পাওয়া যায়, তা নিয়েও উপদেশ দিতেন তিনি। আগের অভিজ্ঞতা জানতে চাওয়া হয়নি। কারণ,তিনি বলেছিলেন তার পুরনো রেকর্ড সব হারিয়ে গেছে।

সূত্রের খবর, বরিসের চিকিৎসকরা ওই হাসপাতালে একদিন এসে তাকে দেখে অবাক হয়ে যান। তারপরই তারা পুলিশে অভিযোগ করেন। আটক করা হয় বরিসকে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার ডিগ্রি ও অন্যান্য সার্টিফিকেট দেখার পর তাকে বরখাস্ত করে।

বরিসের বোনও একজন ডাক্তার। তিনি বলেন, তার ভাই যে চাকরি করছে সেটা বাড়ির লোকরা জানতই না। চিকিৎসকরা তাকে পাভলভ থেকে ছেড়ে দিলেও মাঝেমাঝে চিকিৎসকদের কাছে যেতে হয় তাকে।

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/কেএস