Home খেলা এগিয়ে যাওয়ার লড়াইয়ে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড

এগিয়ে যাওয়ার লড়াইয়ে অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড

- Advertisement -

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে সবার আগে সেমি ফাইনাল নিশ্চিত করেছে অস্ট্রেলিয়া। নিজেদের খেলা সাত ম্যাচের ছয়টিতে জয় আর কেবল একটি হারে ১২ পয়েন্ট নিয়ে অবস্থান করছে টেবিলে সবার শীর্ষে। অন্যদিকে অলৌকিক কিছু না ঘটলে নিউজিল্যান্ডেরও সেমি ফাইনাল নিশ্চিত। এমন পরিসংখ্যানকে সামনে রেখে লন্ডনের লর্ডসে মুখোমুখি হচ্ছে দুই দল। শনিবার (২৯ জুন) বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

দুই দলের অবস্থান:

- Advertisement -

আইসিসির প্রকাশিত সবশেষ র‌্যাংকিংয়ে ১১৪ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে আছে নিউজিল্যান্ড, আর ১১২ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে তালিকার ৫ম স্থানে আছে অস্ট্রেলিয়া।

বিশ্বকাপের সেমি নিশ্চিত করা অজিরা নিজেদের প্রথম ম্যাচে আফগানদের বিপক্ষে ৭ উইকেটের জয় তুলে নিয়েছিল। আর দ্বিতীয় ম্যাচে শক্তিশালী উইন্ডিজকে হারিয়েছিল ১৫ রানে। তৃতীয় ম্যাচে অবশ্য ভারতের কাছে হেরেছে ৩৬ রানে। এরপর পাকিস্তানের বিপক্ষে ৪১ রানের জয় দিয়ে আবারও জয়ের ধারায় ফেরে বর্তমান বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। পরে বাংলাদেশকে হারিয়ে দেয় ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। এরপর স্বাগতিক ইংলিশদের উড়িয়ে নিশ্চিত করে বিশ্বকাপের সেমি। ইংলিশদের নিজেদের শেষ ম্যাচে ৬৪ রানে হারিয়েছিল অজিরা।

অন্যদিকে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে দারুণ শুরু হয়েছিল কিউইদের। প্রথম তিন ম্যাচের প্রত্যেকটি ম্যাচেই জয় আর চতুর্থ ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয় কিউইদের ম্যাচ। এরপর উইন্ডিজদের বিপক্ষে শেষ মুহূর্তের নাটকীয় জয়। আর নিজেদের সপ্তম ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে হার ৬ উইকেটের। প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে ১০ উইকেটে হারিয়েছে, এরপরের ম্যাচে বাংলাদেশকে ২ উইকেটে হারিয়েছে, আফগানদের বিপক্ষে ৭ উইকেটের বড় জয়। ভারতের বিপক্ষে পরিত্যক্ত আর এরপর দক্ষিণ আফ্রিকাকে চার উইকেটে হারায় কিউইরা। এরপর উইন্ডিজের বিপক্ষে মাত্র ৫ রানের নাটকীয় জয়। তবে শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে ৬ উইকেটের বড় ব্যবধানে হেরেছিল কিউইরা। এবার বিশ্বকাপের সেমি নিশ্চিতের লক্ষ্যে অজিদের বিপক্ষে লড়বে নিউজিল্যান্ড।

ভেন্যু:

লর্ডস নাম শুনলেই চোখের সামন ভেসে ওঠে সাদা চকচকে একটি মিডিয়া বক্সের ছবি। আর সবুজ ঘাসে মোড়ানো মাঠ। ক্রিকেটের মক্কা নামে পরিচিত ইংল্যান্ডের লর্ডস ক্রিকেট গ্রাউন্ড। পৃথিবীর সব থেকে পুরাতন ক্রিকেট স্টেডিয়ামের মধ্যে এটি অন্যতম। বয়স প্রায় ২০৫ বছর। ইতিহাস ঐতিহ্য সব দিক দিয়েই ক্রিকেট বিশ্বে লর্ডস সমাদৃত। সাক্ষী হয়ে আছে বহু স্মরণীয় ক্রিকেট ইতিহাসের মুহূর্তের। প্রায় ২৮ হাজার ধারণ ক্ষমতার এই স্টেডিয়ামটি নির্মিত হয়েছিল ১৮১৪ সালে। ২০১৪ সালে ক্রিকেটের মক্কা ২০০ বছরের পদার্পন করে। আর এই দুইশত বছরে লর্ডসের বুকে অনুষ্ঠিত হয়েছে ক্রিকেটের সব থেকে পুরাতন সংস্কর টেস্টের ১০৫টি ম্যাচ। ১৮৮৪ সালের ২১ জুলাই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে এ মাঠের যাত্রা শুরু করে ইংল্যান্ড। এরপর একে একে ১০৫টি টেস্ট ক্রিকেটের সাক্ষী হয়েছে। যার শেষটি ২০১৮ সালের ১০ আগস্ট ভারতের বিপক্ষে।

ওয়ানডে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আসার পর ১৯৭২ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হয় এই মাঠে। এরপর এখন পর্যন্ত ৫৬টি একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ আয়োজিত হয়েছে ক্রিকেটের মক্কায়। একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট শুরু হওয়ার পর ১৯৭৫ সালে ভারতের বিপক্ষে ৬০ ওভারে ইংল্যান্ড সংগ্রহ করেছিল ৪ উইকেট হারিয়ে ৩৩৪ রান। আর এটিই এখন পর্যন্ত লর্ডসে একদিনের ক্রিকেটে সর্বোচ্চ রান। তবে একদিনের ক্রিকেট ৬০ ওভার থেকে ৫০ ওভার করার পর এখানে দলীয় সর্বোচ্চ সংগ্রহ ৩২৮ রান। ২০১৭ সালে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ইংল্যান্ড এই সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছিল।

এবার ক্রিকেট বিশ্বকাপে ফাইনাল সহ ৫টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে এখানে। ৫ জুলাই পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচটিও অনুষ্ঠিত হবে ক্রিকেটের এই ঐতিহ্য ঘেরা ময়দানটিতে। আর ফাইনালে উঠতে পারলে লর্ডসে আরও এক ম্যাচ বেশি খেলার সুযোগ থাকবে টাইগারদের কাছে।

বিশ্বকাপে হেড টু হেড মোট ম্যাচ: ১০টি, নিউজিল্যান্ড জয়ী: ৩টি। অস্ট্রেলিয়া জয়ী: ৭টি। মুখোমুখি দুই দল মোট ম্যাচ: ১৩৩টি নিউজিল্যান্ড জয়ী: ৩৩টি। অস্ট্রেলিয়া জয়ী: ৯০টি। ড্র: ০টি ম্যাচ পরিত্যক্ত: ৮টি।

বিশ্বকাপে দু’দলের শেষ ম্যাচের ফলাফল: বিশ্বকাপে নিজেদের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে ৬ উইকেটে হেরেছে নিউজিল্যান্ড। অন্যদিকে নিজেদের শেষ ম্যাচে ইংল্যান্ডকে ৬৪ রানে হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া।

দৃষ্টি থাকবে যাদের ওপর: কেন উইলিয়ামসন, ট্রেন্ট বোল্ট (নিউজিল্যান্ড), ডেভিড ওয়ার্নার, মিচেল স্টার্ক (অস্ট্রেলিয়া)।

বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ড স্কোয়াড: কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক), মার্টিন গাপটিল, হেনরি নিকোলস, রস টেইলর, টম লাথাম (উইকেটরক্ষক), কলিন মুনরো, টম ব্লান্ডেল, কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম, মিচেল স্যান্টনার, জিমি নিশাম, ইশ সোধি, ম্যাট হেনরি, লুকি ফার্গুসন, টিম সাউদি ও ট্রেন্ট বোল্ট।

বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়া স্কোয়াড: অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), জেসন বেহেনড্রফ, অ্যালেক্স ক্যারি (উইকেটরক্ষক), নাথান কোল্টার-নাইল, প্যাট কামিন্স, উসমান খাজা, নাথান লায়ন, শন মার্শ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, কেন রিচার্ডসন, স্টিভ স্মিথ, মিশেল স্টার্ক, মার্কাস স্টয়নিস, ডেভিড ওয়ার্নার ও অ্যাডাম জাম্পা।

লেটেস্টবিডিনিউজ/এসকেবি

- Advertisement -