পরিচয় মিলেছে চাঞ্চল্য সৃষ্টিকারী সেই বৃদ্ধার

পরিচয় মিলেছে চাঞ্চল্য সৃষ্টিকারী সেই বৃদ্ধার
পরিচয়ের সত্যতা মেলায় বৃদ্ধা শেফালী সরদারকে হস্তান্তর করা হয়েছে - সংগৃহিত ছবি

প্রায় নয় মাস আগে গাইবান্ধা শহরের ডেভিড কোম্পানি পাড়ার আনিসুর রহমানের স্ত্রী বাছিরন বেওয়া (৯২) মারা যান। এরপর স্বাভাবিক চলছিল সবকিছুই।

সম্প্রতি গাইবান্ধা রেল ষ্টেশন চত্বরে মারা যাওয়া বাছিরন বেওয়ার সাদৃশ্যে এক নারীকে ঘোরাফেরা করতে দেখা যায়। তিনিও বাছিরন বেওয়া বলে নিজকে দাবি করেন। এ নিয়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয় ওই এলাকায়। পরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয় ওই নারীকে।

ঘটনার দুই দিন পর মিলেছে ওই বৃদ্ধার পরিচয়। তার প্রকৃত নাম শেফালী সরদার। তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন। খুলনার দৌলতপুর থেকে পথ হারিয়ে গাইবান্ধা চলে আসেন।

আজ শুক্রবার (১৩ মে) সকালে গাইবান্ধা সদর থানা পুলিশ তাকে আশ্রয় দেয়া সুফিয়া বেগমের কাছে হস্তান্তর করেছে।

তদন্তকারী পুলিশ কর্মকর্তা আব্দুর রহমান বলেন, ‘বৃদ্ধার খবর পেয়ে খুলনার দৌলতপুরের বাসিন্দা সুফিয়া বেগম আজ সকালে গাইবান্ধা আসেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘সুফিয়া বেগম জানান, ওই বৃদ্ধার নাম বাছিরন বেওয়া নয়। তার প্রকৃত নাম শেফালী সরদার। তিনি প্রতিবন্ধী বলে তার নামে একটি প্রতিবন্ধী কার্ডও প্রদর্শন করেন।’

বৃদ্ধাকে নিতে আসা সুফিয়া বেগম বলেন, ‘শেফালী সরদারের আত্মীয়স্বজন কেউ নেই। তার কোন ঘর-বাড়িও নেই। তিনি আমার বাড়িতে দীর্ঘদিন যাবত আশ্রিতা হিসাবে থাকতেন। প্রতিবন্ধী বলে তার নামে প্রতিবন্ধী কার্ডও করা হয়েছে।’

গাইবান্ধা সদর থানার ওসি (তদন্ত) ওয়াহেদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘টেলিফোনে খুলনার দৌলতপুরে বৃদ্ধার আশ্রিতার গ্রামের চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের কাছে সত্যতা যাচাই করেছি। পরিচয়ের সত্যতা মেলায় বৃদ্ধা শেফালী সরদারকে হস্তান্তর করা হয়েছে।’