মালপত্র সরাতে খুলে দেওয়া হয়েছে বিজিএমইএ ভবন

মালপত্র সরাতে হাতিরঝিলের বিজিএমইএ ভবনের গেটের তালা খুলে দিয়েছে রাজউক। বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) সকাল ১১টার দিকে বিজিএমইএ ভবন খুলে দেওয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাতিরঝিল প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক এ এস এম রায়হানুল ফেরদৌস।

তিনি জানিয়েছেন, বিজিএমইএ ভবনের ভেতরে থাকা মালপত্র সরিয়ে নেওয়ার জন্য বৃহস্পতিবার সময় দেওয়া হয়েছে। এদিনের মধ্যেই সব মালপত্র সরিয়ে নিতে হবে। এর পরে আর সময় দেওয়া হবে না।

১৬ এপ্রিল বিজিএমইএ ভবনে তালা ঝুলিয়ে সিলগালা করে দেয় রাজউক। রাজউকের অনুমোদন ছাড়াই নির্মিত এই ভবনটি শিগগিরই ভেঙে ফেলা হবে।

২০০৬ সালের ৮ অক্টোবর বিজিএমইএ ভবন উদ্বোধন করেন সে সময়কার প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া। এরপর থেকে ভবনটি বিজিএমইএ এর প্রধান কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছিল।

কিন্তু রাজউকের অনুমোদন ছাড়াই কারওয়ান বাজার সংলগ্ন বেগুনবাড়ি খালে বিজিএমইএ ভবন নির্মাণ করা হয়েছে উল্লেখ করে ২০১০ সাল ০৩ অক্টোবর বিজিএমইএ ভবন কেন ভাঙার নির্দেশ দেওয়া হবে না, তার কারণ জানতে চেয়ে হাইকোর্ট স্বপ্রণোদিত হয়ে (সুয়োমোটো) রুল জারি করেন।

২০১১ সালের ০৩ এপ্রিল বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চ বিজিএমইএ ভবন ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেন। একই সঙ্গে ভবনটি নির্মাণের আগে ওই স্থানের ভূমি যে অবস্থায় ছিল সে অবস্থায় ফিরিয়ে আনতেও নির্দেশ দেন বিজিএমইএকে।

তারপর ভবন ভাঙার জন্য তিন দফায় আদালত থেকে সময় বাড়িয়ে নেয় বিজিএমইএ।