হুমায়ূন আহমেদের ৮ সন্তানেরা কে কোথায় আছেন?

হুমায়ূন আহমেদ। বাংলা সাহিত্যের এক বিস্ময়কর যাদুকর। যখন যেখানে হাত দিয়েছেন সেখানেই সোনা ফলিয়েছেন। মধ্যবিত্ত বাঙ্গালীকে উপজীব্য করে সাহিত্য রচনা ও সেই একই শ্রেণীকে সাহিত্যমুখী করার মধ্য দিয়ে তিনি একটি নতুন ধারার বা চিন্তার জন্ম দিয়েছেন। বাংলা চলচ্চিত্রেও একটি পরিচ্ছন্ন ধারার জন্ম দেওয়া ও সাধারণ শিক্ষিত সমাজকে নাটকমুখো করার ক্ষেত্রেও তার অবদান অনন্য। হুমায়ূন আহমেদের এর তুলনা হুমায়ূন আহমেদ নিজেই। পৃথিবীর সব শক্তিশালী সৃজনশীল লোকদের মতো তাঁর জীবনেও হয়তো কষ্ট ছিল, একাকিত্ব ছিল, স্বপ্ন ছিল, অপূর্ণতা ছিল।

গতকাল (১৩ নভেম্বর) ছিল প্রয়াত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের ৬৯ তম জন্ম বার্ষিকী। ১৯৪৮ সালের এই দিনে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের ময়মনসিংহ জেলার অন্তর্গত নেত্রকোণা মহুকুমার মোহনগঞ্জে জন্মেছিলেন তিনি। যদিও তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই, সে কথা সবারই জানা। ২০১২ সালের ১৯ জুলাই মৃত্যুবরণ করেন হুমায়ূন আহমেদ। জীবদ্দশায় তিনি দুবার বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে সংসার পাতেন। প্রথমবার ১৯৭৩ সালে, গুলতেকিন খানের সঙ্গে এবং পরবর্তীতে ২০০৫ সালে মেহের আফরোজ শাওনের সঙ্গে।

গুলতেকিনের সংসারে জন্মগ্রহণ করেছেন হুমায়ূন আহমেদের মোট ৫ জন সন্তান। এর মধ্যে একটি সন্তানের অকাল মৃত্যু ঘটে। বাকী চারজন হচ্ছেন- বড় মেয়ে নোভা আহমেদ, মেজো মেয়ে শীলা আহমেদ, ছোট মেয়ে বিপাশা আহমেদ এবং ছেলে নুহাশ আহমেদ। ওপর দিকে মেহের আফরোজ শাওনকে বিয়ে করার পর সেই ঘরে জন্ম নেয় তিন সন্তান। প্রথমে যে সন্তান ভূমিষ্ঠ হয়, সেটি ছিল একটি কন্যা সন্তান, কিন্তু সন্তানটি বাঁচেনি। পরবর্তীতে জন্ম নেয় দুসন্তান নিষাদ হুমায়ূন ও নিনিত হুমায়ূন।

হুমায়ূন আহমেদের সন্তানেরা এক প্রকার নিভৃতেই জীবন যাপন করে থাকেন। আর তাই তাদের সম্পর্কে খুব একটা খোঁজ খবর পাওয়া যায় না সব সময়। তার বড় মেয়ে নোভা আহমেদ বর্তমানে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। নোভার স্বামী ড. আরশাদ চৌধুরীও নর্থ সাউথ ইউনির্ভাসিটিতে অধ্যাপনা করছে। মেজো মেয়ে শিলা আহমেদ শৈশব থেকেই অভিনয়ে জড়িয়ে পড়েছিলেন, তবে তিনি অভিনয় জগতে নিয়মিত নন। বেশ কিছু জনপ্রিয় নাটক করেছেন শীলা। সেগুলো হচ্ছে, ‘কোথাও কেউ নেই’, ‘ওইজা বোর্ড’, ‘নিম ফুল’, ‘নক্ষত্রের রাত’ এবং ‘আজ রবিবার’। ১৯৯৯ সালে ‘আজ রবিবার’ নাটকের পর থেকে শীলাকে আর অভিনয়ে দেখা যায়নি।

এদিকে ছোট মেয়ে বিপাশা আহমেদ আর্কানস বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিপার্টমেন্টাল ফিস্ক্যাল ম্যানেজার। বসবাস করছেন আর্কানসের ফায়েন্টভিলেতে। ছেলে নুহাশ হুমায়ূন Hesh নামের একটি পেজের সৃজক। এটি মূলত একটি কমিক পেজ। এছাড়াও নুহাশ বেশ অল্প বয়স থেকেই শর্ট ফিল্ম তৈরি করতেন। গেল ঈদে তিনি একটি নাটক পরিচালনা করে বেশ প্রশংসিত হয়েছেন। নাটকটির নাম ছিল ‘হোটেল অ্যালবেট্রস’। নুহাশ পরিচালিত ঐ নাটকে অভিনয় করেছেন স্বয়ং সংস্কৃতি মন্ত্রী ও অভিনেতা আসাদুজ্জামান নূর। তিনি বর্তমানে ঢাকায় বসবাস করেন।

শাওনের ঘরে হুমায়ূন আহমেদের দুসন্তান এখনও কিছু করার মতো বয়সে পৌঁছায়নি। নিষাদ হুমায়ূন ও নিনিত হুমায়ূন- উভয়েই এখনও বেশ ছোট। মায়ের সঙ্গেই এদেশ ওদেশ ঘুরে বেড়াচ্ছেন তারা। গেল সেপ্টেম্বরে নিনিতের বয়স হয়েছে কেবল সাত বছর।

বাংলাদেশ সময়:১০৩৬ ঘণ্টা, ১৪  নভেম্বর  ২০১৭

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/এস পি

SHARE