পাকিস্তানের জয়ে বিপদ বাড়ল বাংলাদেশের

পাকিস্তানের ক্রিকেট সম্পর্কে যাদের ধারণা আছে তারা জানেন এই দলটি সম্পর্কে ভবিষ্যতবাণী করা মুশকিল। সহজ ম্যাচ কঠিন করে হারতে পারে আবার অবিশ্বাস্য কঠিন ম্যাচও খুব সহজে জিততে পারে বলে পাকিস্তানকে ক্রিকেটের আনপ্রেডিক্টেবল টিম বলা হয়।

এবারের বিশ্বকাপে পাকিস্তানের যাত্রাটা ভালো হলেও সেটা ধরে রাখতে পারেনি সরফরাজ আহমেদর দল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে হেরে বিশ্বকাপে যাত্রা শুরু হলেও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জয় দিয়ে হিসাবের ভারসাম্য করে দলটি। এপর টানা কয়েকটি ম্যাচে হারলে বিপদ বাড়ে পাকিস্তানের।

ষষ্ঠ ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে নিজেদের কোনোমতে টুর্নামেন্টে টিকিয়ে রাখে পাকিস্তান। এখন থেকে পাকিস্তানের জন্য প্রতিটি ম্যাচই ‘ডু অর ডাই’। শেষ চারে নিয়ে যেতে হলে শেষ তিনটি ম্যাচেই জিততে হবে এশীয় পরাশক্তিটিকে।

এমনই পরিস্থিতিতে আজ বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ছয় উইকেটের দাপুটে জয় পেয়েছে পাকিস্তান। এতে টুর্নামেন্টে সেমিফাইনালে খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখলো সরফরাজ বাহিনী। অপরদিকে সেমিফাইনালের পথে চলতে থাকা বাংলাদেশ পড়েছে কঠিন সমিকরণে। টাইগারদের পরবর্তী ম্যাচ দুটি জেতার পাশাপাশি তাকিয়ে থাকবে হবে পাকিস্তান ও ইংল্যান্ডের ম্যাচগুলোর ফলাফলের দিকে। দুর্দান্ত বোলিং করে কিউইদের ২৩৭ রানেই আটকে দেয় সরফরাজ বাহিনী। আফ্রিদি-আমিরদের দাপটে ৮৩ রানেই ৫ উইকেট হারায় নিউজিল্যান্ড। জেমস নিশাম ও কলিন ডি গ্রান্ডহোমের অসাধারণ ব্যাটিংয়ে ২৩৭ পর্যন্ত পৌছাতে সক্ষম হয় নিউজিল্যান্ড।

২৩৭ রান। তারপরও ভরসা ছিল। কিউইদের দুর্দান্ত বোলিং। ভাগ্য জোরে শেষ পর্যন্ত জয় নিয়ে মাঠ ছাড়া। সঙ্গে পাকিস্তান আবার আনপ্রেডিক্টেবল দল। তবে বাবর আযম সেঞ্চুরি করে তেমন কোন অঘটন ঘটতে দেননি। তার ব্যাটে পাঁচ বল হাতে রেখে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন সরফরাজ আহমেদ-বাবর আযম।

পাকিস্তানের জয় বাংলাদেশের চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে । পয়েন্ট টেবিল বলছে, ৭ ম্যাচে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৭। ছয় ম্যাচে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৭।

পাকিস্তানের পরের ম্যাচ আফগানিস্তানের বিপক্ষে। বাংলাদেশ খেলবে ভারতের বিপক্ষে। ম্যাচটা টাইগারদের জন্য যতোটা কঠিন পাকিস্তানের জন্য ততোটাই সহজ। সেই ম্যাচটা পাকিস্তানের সহজেই জেতার কথা। বাংলাদেশ যদি সেদিন ভারতের বিপক্ষে হেরে যায় তাহলে পয়েন্ট টেবিলে মাশরাফিদের টপকে যাবে পাকিস্তান। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের শেষ ম্যাচটা হবে সেমিফাইনালের অলিখিত ড্রেস রিহার্সাল।

তবে এতোকিছু তখনই সম্ভব হবে যদি ভারত ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দুটির অন্তত একটিতে হারে ইংল্যান্ড।

লেটেস্টবিডিনিউজ/এসকেবি