আবেগে জড়িয়ে ধরেছিলেন, দাবি সেই চেয়ারম্যানের

ম্রো সম্প্রদায়ের মানুষদের কাছ থেকে সংবর্ধনা নিতে গিয়ে আবেগে তাদের জড়িয়ে ধরেছিলেন বলে দাবি করেছেন বান্দরবানের আলীকদমে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম। গতকাল রোববার রাতে যোগাযোগ করা হলে মুঠোফোনে তিনি এ দাবি করেন।

আবুল কালাম বলেন, ‘আমি একটা সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম। সেখানে মেয়েগুলো আমাকে ফুল দিয়েছে। নির্বাচনে আমার জন্য তারা অনেক কষ্ট করেছে। এজন্য সংবর্ধনা দিতে গিয়ে ওরা আবেগি হয়ে পড়ায়, আমিও আবেগি হয়েছে গিয়েছিলাম। তাই জড়িয়ে ধরেছি।’

গত সপ্তাহে উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপে বান্দরবানের আলীকদমে চেয়ারম্যান হিসেবে বিজয়ী হন সাবেক বিএনপি নেতা মো. আবুল কালাম। এর পর ২২ মার্চ স্থানীয় নোয়াপাড়া ইউনিয়নের মেরিনচর পাড়ায় সংবর্ধনা নিতে যান তিনি।  ওই পাড়াটিতে মূলত ম্রো ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির মানুষদের বসবাস।

পরে ম্রো সম্প্রদায়ের মানুষদের কাছ থেকে সংবর্ধনা নেওয়ার সময় আবুল কালাম সবার সামনে এক নারীর সঙ্গে বেশ আপত্তিকর আচরণ করেছেন বলে অভিযোগ উঠে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে সেই ছবি ভাইরালও হয়।

ছবিতে দেখা যায়, ম্রো নৃগোষ্ঠির এক নারীকে সবার সামনেই জড়িয়ে ধরে আছেন। ওই নারীর আচরণে বোঝা যায়, তিনি এতে খুবই অস্বস্তিবোধ করছেন। শুধু তাই নয় চেয়ারম্যানের কাছ থেকে দূরে যেতে চেষ্টা করতে দেখা যায় তাকে। অন্যদিকে চেয়ারম্যানও তাকে জোরপূর্বক ধরে রাখার চেষ্টা করেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তিনি একজন বিধবা। ওই নারীর ভাই স্থানীয় এমএনপি কমান্ডারের ঘনিষ্ঠ হওয়ার সুবাদে চেয়ারম্যান আবুল কালাম ওই পাড়ায় সংবর্ধনা নিতে আসেন।

এদিকে ফেসবুকে ছবিগুলো ছড়িয়ে পড়ার পর অনেকেই চেয়ারম্যানের সমালোচনায় করছেন। ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির একজন বিধবা নারীকে এভাবে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে হেনস্তা করার দায়ে চেয়ারম্যানের বিচারও চেয়েছেন অনেকে।

এদিকে আজ সোমবার বিকেলে এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন বলে জানিয়েছেন আবুল কালাম।