আগুন ঝরা ২২ বল, রেকর্ডবুকে তোলপাড় জোসেফের

অভিষেক ম্যাচের প্রথম ওভার, স্ট্রাইকে ফর্মের তুঙ্গে থাকা ডেভিড ওয়ার্নার। ২২ বছর বয়সী তরুণ আলঝারি জোসেফ তাতে ভড়কালেন না, সরাসরি বোল্ড করে দিলেন ওয়ার্নারকে, তবে উদযাপন করলেন না।

ম্যাচ শেষে জানালেন, তখনো ম্যাচ জিততে অনেক কাজ বাকি ছিল, তার মাথায় শুধু সে চিন্তাই ছিল। তাই উদযাপন করা হয়নি। পরে জয়ের ‘অনেক’ কাজটাও একা হাতেই করেছেন জোসেফ। প্রথম বলে ওয়ার্নারকে ফিরিয়ে পরের ২১ বলে আরও পাঁচ ব্যাটসম্যানকে টিকিট ধরিয়েছেন প্যাভিলিয়নের পথ ধরার।

নিজের প্রথম ওভারের প্রথম বলেই ওয়ার্নারের উইকেট নেয়া জোসেফ, সে ওভারের পরের পাঁচটি বল দেন ডট। অভিষেকে নিজের প্রথম ওভারেই তুলে নেন মেইডেন উইকেট। এরপর একে একে সাজঘরে পাঠান বিজয় শঙ্কর, দীপক হুদা, রশিদ খান, ভুবনেশ্বর কুমার ও সিদ্ধার্থ কাউলকে।

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ ১৮তম ওভারে অলআউট হওয়ার সময় জোসেফের বোলিং ফিগারঃ ৩.৪-১-১২-৬! যা কি-না আইপিএলের ইতিহাসে এক ম্যাচে সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড। এমন আরও অনেক রেকর্ডই নিজের নামে করে নিয়েছেন ২২ বছর বয়সী এ তরুণ।

জোসেফের এমন বোলিংয়ের দিনে আইপিএলে নিজেদের ইতিহাসের সর্বনিম্ন ৯৬ রানে অলআউট হয়েছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। টানা তিন জয়ের পর প্রতিপক্ষকে মাত্র ১৩৬ রানে আটকে রেখেও ম্যাচ হেরেছে ৪০ রানের বড় ব্যবধানে।

যার পেছনে সম্পূর্ণ কৃতিত্ব ২২ বছর বয়সী জোসেফের ২২ বলের এক স্পেলের। যে স্পেলে রেকর্ডবুকে ঝড় তুলেছেন এ ক্যারিবীয় গতিতারকা। আইপিএলের ইতিহাসে অভিষেক ম্যাচের প্রথম বলেই উইকেট নেয়া ৭ নম্বর বোলার জোসেফ।

তার আগে কিংস এলেভেন পাঞ্জাবের হয়ে উইলকিন মোতা, ডেকান চার্জার্সের হয়ে তাদুরি প্রকাশ সুধিন্দ্রা, মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের হয়ে আলি মুর্তাজা, রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে অমিত সিং, কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে ইশান্ত শর্মা এবং ডেকান চার্জার্সের হয়ে রবি তেজা এ কীর্তি দেখিয়েছিলেন।

তবে এ ছয়জনের কেউই নিজেদের প্রথম ওভার মেইডেন দিতে পারেননি। যা পেরেছেন শুধু অস্ট্রেলিয়ান পেসার প্যাট কামিনস। ২০১৪ সালের আসরে কলকাতার হয়ে নিজের প্রথম ম্যাচের প্রথম ওভারেই উইকেট মেইডেন নেন কামিনস। কিন্তু নিজের প্রথম বলে উইকেট নিতে পারেননি তিনি।

তাই আইপিএলের ইতিহাসে অভিষেক ম্যাচের প্রথম বলে উইকেট নেয়া এবং প্রথম ওভারে মেইডেন নেয়া প্রথম এবং একমাত্র বোলার আলঝারি জোসেফ। যিনি গড়েছেন অভিষেক ম্যাচ তথা আইপিএল ইতিহাসেরই সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড।

এতদিন ধরে আইপিএল অভিষেকে সেরা বোলিংয়ের রেকর্ডটা ছিলো অস্ট্রেলিয়ান পেসার অ্যান্ড্রু টাইয়ের দখলে। ২০১৭ সালের আইপিএলে গুজরাট লায়নসের হয়ে খেলতে নেমে তিনি নিয়েছিলেন ১৭ রানে ৫ উইকেট। যা এখন নিজের দখলে নিয়েছেন জোসেফ।

এছাড়া ২০০৮ সালে প্রথম আসরেই রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে খেলতে নেমে মাত্র ১৪ রানে ৬ উইকেট নিয়ে আইপিএল ইতিহাসে সেরা বোলিংয়ের রেকর্ড গড়েছিলেন পাকিস্তানি পেসার সোহেল তানভীর। প্রায় ১১ বছর পর সে রেকর্ডেও হানা দিয়েছেন ক্যারিবীয় তরুণ আলঝারি জোসেফ।

তবে অল্পের জন্য আইপিএল ইতিহাসে কনিষ্ঠতম ক্রিকেটার হিসেবে পাঁচ বা ততোধিক উইকেট নেয়ার রেকর্ড গড়তে পারেননি জোসেফ। এটি রয়েছে জয়দেব উনাদকাতের দখলে।

আইপিএল ইতিহাসে সেরা বোলিং: 
১. আলঝারি জোসেফ: ১২ রানে ৬ উইকেট, ২০১৯
২. সোহেল তানভীর: ১৪ রানে ৬ উইকেট, ২০০৮
৩. অ্যাডাম জাম্পা: ১৯ রানে ৬ উইকেট, ২০১৬
৪. অনিল কুম্বলে: ৫ রানে ৫ উইকেট, ২০০৯
৫. ইশান্ত শর্মা: ১২ রানে ৫ উইকেট, ২০১১

আইপিএল অভিষেকে সেরা বোলিং: 
১. আলঝারি জোসেফ: ১২ রানে ৬ উইকেট, ২০১৯
২. অ্যান্ড্রু টাই: ১৭ রানে ৫ উইকেট, ২০১৭
৩. শোয়েব আখতার: ১১ রানে ৪ উইকেট, ২০০৮
৪. শাদাব জাকাতি: ২৪ রানে ৪ উইকেট, ২০০৯

আইপিএলে ৫ উইকেট নেয়া কনিষ্ঠতম বোলার
১. জয়দেব উনাদকার: ২০১৩ সালে ২১ বছর ২০৪ দিন বয়সে
২. আলঝারি জোসেফ: ২০১৯ সালে ২২ বছর ১৩৭ দিন বয়সে
৩. ইশান্ত শর্মা: ২০১১ সালে ২২ বছর ২৩৭ দিন বয়সে

আইপিএলে হায়দরাবাদের সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ: 
১. ২০১৯ সালে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের বিপক্ষে ৯৬/১০
২. ২০১৫ সালে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের বিপক্ষে ১১৩/১০
৩. ২০১৬ সালে রাইজিং পুনে সুপারস্টার্সের বিপক্ষে ১১৮/৮
৪. ২০১৮ সালে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের বিপক্ষে ১১৮/১০