পশ্চিম দিকে পা দিয়ে ঘুমানো বা বসা কি নিষিদ্ধ?

প্রশ্ন: আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। পবিত্র কাবা আমাদের দেশ থেকে পশ্চিম দিকে অবস্থিত। তাই জানতে চাই পশ্চিম দিকে পা দিয়ে বসা বা ঘুমানো সম্পর্কে শরীয়তের হুকুম কি? দলীলসহ জানালে কৃতজ্ঞ হবো।

উত্তর: ওয়া আলাইকুমুসসালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু।

وفى الفتاوى الهندية- ويكره مد الرجلين إلى الكعبة في النوم وغيره عمدا (الفتاوى الهندية، كتاب الكراهية، الباب الخامس في آداب المسجد والقبلة والمصحف-5/319

কাবার দিকে ইচ্ছাকৃত পা লম্বা করা মাকরূহ। ঘুমন্ত বা জাগ্রত অবস্থায়। {ফাতাওয়া হিন্দিয়া-৫/৩১৯, আল মুহিতুল বুরহানী-৮/১০, ফাতওয়ায়ে মাহমুদিয়া-২৯/১৭৪}

অনিচ্ছায় হলে সমস্যা নেই।

কারণ, এতে করে কাবার অসম্মান হয়। আর পবিত্র কুরআনে আল্লাহর নিদর্শনাবলীকে সম্মান করতে উৎসাহ প্রদান করা হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে,

ذَٰلِكَ وَمَن يُعَظِّمْ شَعَائِرَ اللَّهِ فَإِنَّهَا مِن تَقْوَى الْقُلُوبِ

“এটা শ্রবণযোগ্য কেউ আল্লাহর নামযুক্ত বস্তুসমূহের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করলে তা তো তার হৃদয়ের আল্লাহভীতি প্রসূত।” [সূরা হাজ্জ্ব-৩২]

তবে নাজায়েয বা হারাম হওয়ার স্পষ্ট কোন দলীল কুরআন ও হাদীসে পাওয়া যায় না। তাই পশ্চিম দিকে পা দিয়ে বসা বা ঘুমানোকে সরাসরি নাজায়েয (অননুমোদিত) বা হারাম (নিষিদ্ধ) বলা যাবে না। এক্ষেত্রে ব্যক্তির নিয়্যত ধর্তব্য হবে। যদি সে ইচ্ছাকৃতভাবে কাবার দিকে পা প্রলম্বিত করে কাবার মর্যাদাক্ষুণ্ণ করার উদ্দেশ্যে, তাহলে অবশ্যই সেটা মারাত্মক গর্হিত কাজ বলে বিবেচিত হবে।

এছাড়া, অনেককে যেমন বলতে শোনা যায় যে, কিবলার দিকে বা পশ্চিম দিকে পা রেখে ঘুমালে হায়াত কমে যায়–এসব কথা কুরআন ও হাদীসে নেই। তাই এগুলো বিশ্বাস করাও জায়েয নয়।

والله اعلم بالصواب

লেটেস্টবিডিনিউজ/এনপিবি