ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায় তেলাপিয়া মাছ

বাজারে সারা বছর পাওয়া যায়-এমন মাছের মধ্যে তেলাপিয়া অন্যতম। পুষ্টিবিদদের মতে, এ মাছের পুষ্টিগুণ অসাধারণ! তেলাপিয়ায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, পটাশিয়াম, ভিটামিন বি-১২ এবং ফসফরাসের মতো একাধিক অপরিহার্য উপাদান।

তবে সম্প্রতি একাধিক গবেষণায় তেলাপিয়া মাছের বেশ কয়েকটি ক্ষতিকর দিক সামনে এনেছেন বিজ্ঞানীরা। তাদের দাবি, তেলাপিয়া থেকে হাড়ের ক্ষয়, হাঁপানি এমনকি ক্যানসারের মতো মারণ রোগও শরীরে বাসা বাধতে পারে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগের (USDA) গবেষকদের দাবি, তেলাপিয়া মাছ খেলে ক্যানসারের ঝুঁকি প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে যেতে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগের গবেষণায় দেখা গেছে, এশিয়ায় (আমেরিকায় আমদানি হওয়া তেলাপিয়া মাছের ৭০ শতাংশই আসে চীন থেকে) আমদানি করা তেলাপিয়া মাছের শরীরে মিলেছে মারাত্মক বিষ। মাছ চাষের সময় হাঁস, শুয়োর বা মুরগির দেহাবশেষ খেয়ে এই মাছগুলো দ্রুত বেড়ে ওঠে আর একই সঙ্গে হয়ে ওঠে বিষাক্ত।

বিজ্ঞানীদের দাবি, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তেলাপিয়া মাছ চাষের সময় অত্যাধিক পরিমাণে অ্যান্টিবায়োটিক, কীটনাশক ও রাসায়নিকের ব্যবহার করা হয়। তেলাপিয়া চাষের জন্য ব্যবহৃত রাসায়নিকের মধ্যে ‘ডিবিউটিলিন’ (Dibutylin) নামে এক ধরনের রাসায়নিকের উপস্থিতি লক্ষ্য করেছেন মার্কিন গবেষকরা। প্লাস্টিকের বিভিন্ন জিনিস তৈরির ক্ষেত্রেও এই ‘ডিবিউটিলিন’-এর ব্যবহার করা হয়।

মার্কিন গবেষকরা জানিয়েছেন, এই ‘ডিবিউটিলিন’ মানব শরীরে প্রবেশ করলে স্থুলতা (ওবেসিটি), হাঁপানি, অ্যালার্জি এবং নানা রকমের রোগ বাসা বাধতে পারে। এ ছাড়াও তেলাপিয়া চাষের জন্য ব্যবহৃত ওষুধে ‘ডাইঅক্সিন’ নামে এক ধরনের রাসায়নিকের উপস্থিতি লক্ষ্য করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগের (USDA) গবেষকরা যা মানব শরীরে প্রবেশ করলে ক্যানসারের ঝুঁকি বহুগুণ বাড়িয়ে দিতে পারে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (FDA)-এর একটি রিপোর্টে জানানো হয়েছে, ৮০০-র বেশি নমুনা পরীক্ষা করে তেলাপিয়া মাছে ‘ডিবিউটিলিন’ এবং ‘ডাইঅক্সিন’ নামে মারাত্মক ক্ষতিকর রাসায়নিকের উপস্থিতির প্রমাণ পাওয়া গেছে।