কান উৎসবে রুশ সেনাদের ধর্ষণের বিরুদ্ধে ইউক্রেনীয় তরুণীর প্রতিবাদ

কান উৎসবে রুশ সেনাদের ধর্ষণের বিরুদ্ধে ইউক্রেনীয় তরুণীর প্রতিবাদ
নিরাপত্তা কর্মীরা রুশ সেনাদের ধর্ষণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী ইউক্রেনীয় তরুণীকে সরিয়ে নেন - সংগৃহীত ছবি

৭৫তম কান চলচ্চিত্র উৎসবের রেড কার্পেটে রুশ আগ্রাসনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে এক ইউক্রেনীয় তরুণী আলোড়ন তুলেছেন। বিবিসি গতকাল শনিবার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এবারের আসরের পর্দা উঠেছে গত মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় রাত সোয়া ১১টায়। প্রতিবারের মতো এবারও ফ্রান্সের কান শহরে বসেছে এ জমকালো আয়োজন। কান উৎসরের রেড কার্পেটে রুশ সেনাদের ধর্ষণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন। অবশ্য তার প্রতিবাদের ভাষা ছিল ভিন্ন। কানের রেড কার্পেটে তিনি তার কাপড় খুলে শরীরে আঁকা ইউক্রেনের পতাকার সঙ্গে ‘আমাদের ধর্ষণ করা বন্ধ করুন’ লেখা প্রদর্শন করেন। পরে নিরাপত্তা কর্মীরা তাকে সরিয়ে নেন।

ইউক্রেনীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, রুশ আগ্রাসনের সময় ইউক্রেনীয় নারীদের ধর্ষণের ঘটনা তদন্ত করছে তারা।

এদিকে, এবারের কান চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভাষণ দিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। বিশ্ব চলচ্চিত্রের সবচেয়ে বড় এ উৎসবে তিনি স্যাটেলাইটের মাধ্যমে যুক্ত হন। মঞ্চে বড়পর্দায় ভিডিওতে জেলেনস্কি হাজির হলে উপস্থিত সবাই তাকে দাঁড়িয়ে সম্মান জানান। ইউক্রেনের সাবেক এ অভিনেতা নিজের ভাষণে রুশ আগ্রাসনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য বিশ্বজুড়ে সবার সমর্থনের আবেদন জানিয়েছেন।

এ ছাড়া চলচ্চিত্রে যুদ্ধ ও স্বৈরশাসকদের তুলে ধরতে ‘দ্য গ্রেট ডিক্টেটর’ ও ‘অ্যাপোক্যালিপস নাউ’র মতো ছবির উদাহরণ তুলে ধরেছেন জেলেনস্কি।

তিনি বলেন, গণকবরে ভরে গেছে ইউক্রেন। আমার দেশে প্রতিদিন মানুষের মৃত্যু হচ্ছে। আমাদের সাজানো রঙিন দেশ ক্ষত-বিক্ষত-রক্তাক্ত অথচ বিশ্ব সিনেমা নিশ্চুপ। এ রকম তো হওয়ার কথা ছিল না। বিশ্ব সিনেমা কি এভাবেই নিশ্চুপ থাকবে, তারা কি ইউক্রেনের পাশে দাঁড়াবে না, বলবে না বন্ধ হোক যুদ্ধ।

জেলেনেস্কি এ সময় উদাহরণ টানেন চার্লি চ্যাপলিনের। যিনি ১৯৪০ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের বিরুদ্ধে হিটলারের আগ্রাসী নীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছিলেন। নিজে হিটলার সেজে অভিনয় করেন দ্য গ্রেট ডিক্টেটর সিনেমায়। চ্যাপলিন যখন হিটলার সাজেন, তখন বিশ্বকে যুদ্ধ থামানোর কথা বলেন, চ্যাপলিন যখন হিটলার রূপে তখন হত্যার বিরুদ্ধে কথা বলেন। সেদিন সিনেমা হয়ে ওঠে প্রতিবাদের তীব্র রূপ।

সংবাদ সূত্রঃ বিবিসি