অচলাবস্থা ঠেকাতে নতুন চুক্তিতে মার্কিন কংগ্রেস

যুক্তরাষ্ট্রে ফের অচলাবস্থা ঠেকাতে সীমান্ত নিরাপত্তা বিষয়ক নতুন চুক্তিতে পৌঁছেছে রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাটরা। আইনপ্রণেতারা জানিয়েছেন, স্থানীয় সময় সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) ওয়াশিংটনে এক রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর চুক্তিতে সম্মত হয়েছে উভয় পক্ষ। খবর বিবিসির।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত চুক্তিটি নিয়ে কোন বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ পায়নি। এমনকি এটাও নিশ্চিত নয় যে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চুক্তিটি সমর্থন করবেন কিনা।

অচলাবস্থা ঠেকাতে এর আগেও বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে কোন চুক্তিতে পৌঁছাতে না পারায় ওই বৈঠক স্থগিত করা হয়। ওই বৈঠকে, কত সংখ্যক অনথিভুক্ত অভিবাসীকে আটক করা যাবে ও ট্রাম্পের সীমান্ত দেয়াল নির্মাণের অর্থায়নের অনুমোদন নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে ভিন্নমত ছিল।

উল্লেখ্য, গত ডিসেম্বরে শুরু হওয়া অচলাবস্থা ৩৫ দিন স্থায়ী হয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘতম অচলাবস্থার ঘটনা এটি।

অচলাবস্থার শিকার হয়ে ৩৫ দিন বেতনহীন ছিলেন প্রায় লাখ লাখ সরকারি কর্মচারী। সাময়িকভাবে অর্থায়ন বন্ধ ছিল স্বাস্থ্যসেবা সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ খাতে। মার্কিন অর্থনীতি প্রায় ১ হাজার ১০০ কোটি ডলার ক্ষতির শিকার হয়েছে।

গত ২৫ জানুয়ারি তিন সপ্তাহের জন্য অচলাবস্থা স্থগিত রাখতে ডেমোক্র্যাটদের সঙ্গে একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন ট্রাম্প। শুক্রবার ওই চুক্তির মেয়াদ শেষ হতে যাচ্ছে। এর আগেই সরকারি খাতগুলোতে অর্থায়ন নিশ্চিত করতে নতুন চুক্তি পাস করতে হবে। অন্যথায় ফের আংশিক অচলাবস্থার মুখে পড়বে যুক্তরাষ্ট্র।

নতুন চুক্তি

সোমবার প্রথম দফায় আলোচনা স্থগিত হওয়ার পর দ্বিতীয় দফায় বৈঠক করেন রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাট নেতারা। বৈঠক শেষে রিপাবলিকান সিনেটর রিচার্ড শেলবি বলেন, দুই পক্ষের মধ্যকার সকল গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুর সমাধান হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা সবাই একটি চুক্তিতে পৌঁছেছি। তিনি আরও জানান, চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে এ নিয়ে আরও বিস্তারিত আলোচনা করবে দুই পক্ষের কর্মকর্তারা।

স্থানীয় গণমাধ্যমে বলা হয়েছে, নতুন চুক্তিতে ট্রাম্পের সীমান্ত দেওয়াল নির্মাণের জন্য ১৩৭ কোটি ৫০ লাখ ডলার অর্থের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। যদিও ট্রাম্প দেয়ালটি নির্মাণের জন্য ৫৭০কোটি ডলার চেয়েছিলেন।

এছাড়া কমানো হয়েছে অনথিভুক্ত অভিবাসী আটকের সংখ্যা। নতুন চুক্তি অনুসারে, সর্বোচ্চ ৪০ হাজার ২৫০জন অনথিভুক্ত অভিবাসীকে আটক করতে পারবে মার্কিন অভিবাসন ও কাস্টমস বাহিনী। পূর্বে এই সংখ্যা ছিল ৪৯ হাজার ৫৭ জন।

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/কেএস