‌’রাজনীতি করে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছানো যায়’

রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি ,ধানমন্ডি থানা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছেন প্রায় তিনমাস হলো। এর মধ্যে থানা ছাত্রলীগের জনপ্রিয় মুখ হয়ে ওঠছেন তিনি। কেমন কাটছে তার দায়িত্ব,ছাত্রলীগ নিয়ে তার ভাবনা কি, এসব বিষয়ে নিয়ে তার সাথে কথা বলেছেন মোঃ আমজাদ হোসাইন

প্রশ্ন:এতকিছু থাকতে রাজনীতিতে কেন?
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: ছোট বেলা থেকেই দেখে আসছি আমাদের অভিভাবকরা আমাদের ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার কিংবা বিসিএস ক্যাডার হওয়ার স্বপ্ন দেখান। আমরা সবাই যদি ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার অথবা বিসিএস ক্যাডার হয়ে যাই, তাহলে রাষ্ট্র পরিচালনা করবে কে? রাজনীতির মাঠ তো মেধাহীন হয়ে পড়বে। মূলত সেই ভাবনা থেকেই রাজনীতিতে আসা।

-প্রশ্ন: রাজনীতিতে আসার অনুপ্রেরণা কোথায় পেয়েছেন?
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: আমার আজও মনে পড়ে। খুব ছোট বেলায় অর্থাৎ প্রথম অথবা দ্বিতীয় শ্রেণীতে ছিলাম। তখন ১৫ অগাস্ট এলেই চারিদিকে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ শুনতাম। তারপর, যখন থেকে বোঝতে শিখি তখন থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শে নিজেকে গড়তে থাকি। বলতে পারেন বঙ্গবন্ধুর সেই ৭ই মার্চের ভাষণটিই আমাকে রাজনীতিতে আসতে বাধ্য করেছে।

প্রশ্ন :ধানমন্ডির মত গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় আপনি ছাত্রলীগের সেক্রেটারি, বিষয়টি কিভাবে দেখেন?
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: ধানমন্ডি অবশ্যই একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গায়। কারণ ধানমন্ডি ৩২ মানেই আ’লীগের প্রাণ কেন্দ্র। দলের জন্য দীর্ঘ দিল ধরে কাজ করছি। দল আমাকে যোগ্য মনে করে এই মর্যাদা দিয়েছে। এই মর্যাদা আমার জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি। আর এই দলের জন্য যেকোন কাজে যেকোন সময় আপোসহীন ভাবে কাজ করে যাব।

প্রশ্ন: পরিবার থেকে রাজনীতি করার সমর্থন পাচ্ছেন?
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: ২০০৬ থেকেই আমি রাজনীতির সাথে জড়িত। তখন শরীয়তপুরে স্কুল, কলেজ ও সদরে রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলাম। পরবর্তীতে ঢাকায় কাজ করা শুরু করি। তবে পরিবারে এক মাত্র ছেলে হওয়ায় প্রথম দিকে তেমন সমর্থন পাইনি। পরবর্তীতে বাবা-মা যখন দেখলেন আমার মাধ্যমে মানুষের উপকার হচ্ছে। এবং মানুষজন আমার প্রশংসা করছে তারপর থেকেই যথাযথ সমর্থন দিচ্ছে। আসলে তাদের সহযোগিতা ছাড়া এতদূর আসতে পারতাম না।

প্রশ্ন: ছাত্রলীগের কিছু কর্মকান্ডের ফলে সংগঠনটি আজ ব্যাপক সমালোচনার মুখে, এ নিয়ে কী বলবেন?
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: বাংলাদেশ ছাত্রলীগ উপমহাদেশে সবচেয়ে প্রাচীন ও সর্ব বৃহৎ ছাত্র সংগঠন। ১৯৪৮ সালের ৪ঠা জানুয়ারি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বাংলাদেশের সকল ইতিহাসের সাথে জড়িত। এত বড় সংগঠন হওয়ার ফলে এর কর্মীদের ছোট খাটো কিছু ভুল থাকতে পারে। তবে এই বাইরে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের শত শত ভাল কাজ রয়েছে যেগুলো কখনো মিডিয়াতে আসে না। মূলত ছাত্রলীগ সুশীল সমাজ দ্বারা কলম সন্ত্রাসের শিকার।

প্রশ্ন: কোটা আন্দোলন নিয়ে কী বলবেন?
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: দেখুন, আমাদের দেশে অবশ্যই কোটার ব্যবহার অযৌক্তিক নয়। অন্তত যারা রক্ত দিয়ে দেশ স্বাধীন করেছেন তাদের প্রজন্মের জন্য। তাছাড়া পিছিয়ে পড়া অঞ্চল, শারীরিক অক্ষম ও নারীদের জন্য। কিন্তু সম্প্রতি কোটা আন্দোলনটি আমার কাছে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত একটি আন্দোলন মনে হয়। যার পেছনে রয়েছে অশোভ শক্তি! এর প্রমাণ আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়া নেতাদের বিকাশ ও ব্যাংক একাউন্ট তদন্ত করলেই বেরিয়ে আসবে।

-প্রশ্ন: ধানমন্ডি থানা ছাত্রলীগ নিয়ে কোন পরিকল্পনা?
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: ধানমন্ডির প্রতিটি গলিতে আমাদের কর্মী রয়েছে। সকলকে সাথে নিয়ে ধানমন্ডি থানা ছাত্রলীগকে একটি মডেল ইউনিট হিসেবে গঠন করতে চাই। তাছাড়া, আ’লীগের উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডের প্রচারণা ছাড়াও সামনে জাতীয় নির্বাচনকে ঘিরে আমাদের কিছু পরিকল্পনা রয়েছে।

প্রশ্ন: কাজ করতে গিয়ে কখনো প্রতিবন্ধকতার শিকার হয়েছেন?
না। প্রতিবন্ধকতা তেমন দেখিনি। বরং আমাদের নেতা ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস ভাইয়ের দোয়া ও সহযোগিতা সবসময় সাথে পেয়েছি।

প্রশ্ন: রাজনীতি নিয়ে আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?
আমার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা শুধু একটাই। আর তা হল জনগণ। আমি জনগণের সেবা করতে চাই। আজীবন তাদের সেবক হয়ে থাকতে চাই।

প্রশ্ন : কখনো এমপি হওয়ার ইচ্ছে আছে?
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: রাজনীতি আমার কাছে মহাসমুদ্রের মত। আর এই সমুদ্রে আমি সবে মাত্র ডিঙি নৌকায় আছি। ধানমন্ডির সকল ছোট ভাইদের নিয়ে এই সমুদ্র পার হতে চাই। আর এমপি আমার কাছে বিশাল ব্যাপার। তা কখনো চিন্তা করিনি। স্বপ্নেও দেখিনি!

প্রশ্ন: কখনো ভেবেছিলেন ধানমন্ডি থানার সেক্রেটারি হবেন?
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: কর্মী হিসেবে দীর্ঘ দিন কাজ করেছি। পদের জন্য নয়। নগর উত্তরের সকল মিছিল মিটিংয়ে শতভাগ উপস্থিত থাকতে চেষ্টা করেছি। সবকিছু বিবেচনা করে আমাদের অভিভাবক ঢাকা ১০ আসনের সাংসদ ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস এবং ঢাকা উত্তরের প্রেসিডেন্ট ও সেক্রেটারি মনে করেছেন ধানমন্ডির জন্য আমি ও আব্দুল্লাহ আসিফ জয় যোগ্য তাই তারা আমাদের নিয়োগ দিয়েছেন।

প্রশ্ন: সাধারণ মানুষ মনে করে রাজনীতি নোংরা, আপনি কিভাবে দেখছেন?
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: আমার কাছে রাজনীতি একটি পবিত্র জিনিস। কারণ এর মাধ্যমে আপনি ব্যাপক ভাবে সাধারণ মানুষের কাছে যেতে পারবেন। তাদের কল্যাণে কাজ করতে পারবেন। একটা সময় ছিল যখন রাজনীতির নামে অনেক খারাপ কিছু হতো। তবে এখন অনেকটা পরিবর্তন এসেছে। যার ফলে অনেক নামি-দামি পরিবারের সন্তানরা রাজনীতিতে আসছে। তবে মানুষের এই চিন্তা ভাবনার পরিবর্তন আসবে। কিছুটা সময় লাগবে।

: ধন্যবাদ।
রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি: আপনাকেও ধন্যবাদ।

বাংলাদেশ সময়ঃ ১৪৩৭ ঘণ্টা, ০২ আগস্ট, ২০১৮
লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/আর