বাংলাদেশের সামনে শেষ সুযোগ আজ

দীর্ঘ এক সফরের সমাপ্তি হচ্ছে আজ। ভয়ঙ্কর এক রাত্রি শেষে ভোর এলে যেমন হয় তেমন অবস্থা যেন বাংলাদেশ শিবিরে। হারে হারে জর্জরিত দল। মনোবল নেমে গিয়েছিল শূন্যের কোঠায়। তবে আগের ম্যাচের নৈপুণ্য যেন কিছুটা আশার আলো জ্বেলেছে ক্রিকেটারদের মনে। সাহস ফিরেছে।

প্রথম টি-২০তে হারলেও ক্রিকেটভক্তরা খুশি। হারটা একেবারে গো-হারা হয়নি। দক্ষিণ আফ্রিকানরা কিছুটা সময়ের জন্য হলেও চিন্তায় পড়ে গিয়েছিল। দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে বাংলাদেশ যতই হারুক তাতে প্রোটিয়াদের বাহবা পাওয়ার খুব বেশি কিছু নেই। বরং একটি হার তাদের জন্য অনেক বড় লজ্জার হয়ে উঠবে। তাই টেনশনটা তাদের কম নয়। বাংলাদেশ দল ব্লুমফন্টেইনের ওই খেলায় স্বাগতিকদের চেয়ে একটি বেশিই বাউন্ডারি হাঁকিয়ে (২১টি আর ২০টি) সামর্থ্যের প্রমাণ দিলেও পেছনে পড়ে গেছেন। কারণ তারা অনেক বেশি বলে রান নিতে পারেননি। অর্থাৎ ডট বল দিয়েছেন বেশি।

১২০ বলের খেলায় ৫২ বলে কোনো রান নিতে পারেননি বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। যদিও যেসব বলে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা আউট হয়েছেন সেগুলো দেখে বরং মনে হয়েছে ছেড়ে দেয়াই ভালো ছিল। বিপরীতে বাংলাদেশের বোলার ও ফিল্ডাররা কিছু রান বেশি দিয়েছেন ওয়াইড-নো আর মিস ফিল্ডিংয়ে। বেহারডিনের ঝড়ো ইনিংসই বাংলাদেশকে দূরে ঠেলে দেয়। এই ব্যাটসম্যান এবার বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ইনিংসে একবারও আউট হননি। আবার দক্ষিণ আফ্রিকানরা বাংলাদেশের রান যেমন আটকেছেন তেমন কটি অসাধারণ ক্যাচও নিয়েছেন।

শেষ ভালো যার সব ভালো তার। এ কথাটাই কাল বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সভায় বারবার উচ্চারিত হয়ে থাকবে। ভালো একটা ভাবমূর্তি নিয়ে দেশে ফিরতে হলে জয়ের কোনো বিকল্প নেই। ২ টেস্ট, ৩ ওয়ানডের পর প্রথম টি-২০তেও হার। আজ দ্বিতীয় ও শেষ টি-২০। এটাতেও হারলে ট্রেবল হোয়াইটওয়াশ হয়ে দেশে ফিরবে সাম্প্রতিক সময়ে সাফল্যের তুঙ্গে ওঠা বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। ২০১৫ বিশ্বকাপ থেকে যে দলের উত্থান সে দল হঠাৎ যেন কেমন মিইয়ে গেল। অনেকদিন পর বাংলাদেশ দলকে দেখা গেল হারের পর হারে নিস্তেজ হয়ে পড়তে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড প্রধান বলেছেন, এটা দলের আসল চেহারা নয়। তার কথা শতভাগ ঠিক। তবে এটাও ঠিক দেশের মাটিতে পাওয়া সাফল্যও বাংলাদেশ দলের আসল চেহারা নয়। পুরো বিষয়টাই নতুন ভাববার তাগিদ দিয়ে গেল বাংলাদেশ দলের এ সফর।

বাংলাদেশ দলের সাবেক কোচ সারোয়ার ইমরান এখনো মনে করেন, দেশের ক্রিকেট যেভাবে চলছে তাতে গোড়াতেই রয়েছে বড় গলদ। এ গলদ দূর করতে না পারলে সাময়িক সাফল্যে উদ্বেলিত হওয়া যেতে পারে বটে। কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদে তা হিতে বিপরীত হতে পারে। দলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে রয়েছে নানা গুঞ্জন। কোচ-ক্যাপ্টেন দ্বন্দ্ব এখন প্রকাশ্য। সকল ক্ষমতার উৎস আর টিম ম্যানেজমেন্টের হাতে নেই। তবে কার হাতে? না, তা বলা যাবে না- আসলে বলার সাহসও নেই কারো।

বাংলাদেশ ক্রিকেট দল আজ দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের শেষ খেলায় মাঠে নামছে। টি-২০ সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ এ ম্যাচটি মাঠে গড়াবে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায়। পচেফস্ট্রমের মাঠে এটিই প্রথম কোনো আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচ। এ খেলায় দলে পরিবর্তন আসছে নিশ্চিত। বিসিবি সভাপতিই সে আভাস দিয়েছেন। দুর্বল বোলিং বিভাগে জোর বাড়ানোর চেয়ে ব্যাটিংয়েই শক্তি বাড়াতে চাইছেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। সে হিসেবে আজ বাদ পড়তে পারেন তাসকিন-শফিউলের একজন। আর দলে ঢুকতে পারেন নাসির বা লিটন দাস। চমক হতে পারে মুমিনুল হককে নিয়েও। সৌম্য সরকার-সাব্বির রহমানের সঙ্গে যদি মুশফিক-সাকিব জ্বলে উঠতে পারেন তবে যে কোনো দলের জন্যই তা বিপজ্জনক। মাহমুদুল্লাহর খেলাও তো দেখানো বাকি। বাংলাদেশ দল আজ হারলে সিরিজের ফল দাঁড়াবে দক্ষিণ আফ্রিকা ৭- ০ বাংলাদেশ। আর যদি বাংলাদেশ জিততে পারে তবে হবে ৬-১।

বাংলাদেশ সময়: ১০১০ ঘণ্টা, ২৯ অক্টোবর  ২০১৭

লেটেস্টবিডিনিউজ.কম/কেএসপি