রাজশাহীতে মেয়ের ধর্ষণকারীর বিচারের দাবিতে রাস্তায় বাবা

Rajshahi

দুলাভাইয়ের কাছে রাজশাহীর পুঠিয়ায় ধর্ষণের শিকার হয়েছিল ইভা খাতুন (১২)। বিচার না পেয়ে লজ্জা ও অভিমানে সে আত্মহত্যা করে। এ ঘটনায় থানায় মামলাও হয়। কিন্তু আত্মহত্যার দুই মাস পেরিয়ে গেলেও আসামিদের আটক করতে পারেনি পুলিশ। এ ঘটনায় বিচারের দাবি নিয়ে অবশেষে রাস্তায় নেমেছেন ইভার বাবা।

বুধবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা পরিষদের সামনে ইভা খাতুনের বাবা ভ্যানচালক সেলিম হোসেন বিচারের আশায় ব্যানার নিয়ে একাই দাঁড়িয়ে পড়েন।

ব্যানারে ছিল মেয়ে ইভার ছবি। আর বিচারের আকুতি জানিয়ে লেখা- ‘ধর্ষণ ও আত্মহত্যার প্ররোচনাকারীর গ্রেফতার ও ফাঁসি চাই।’

সেলিম হোসেন বলেন, ‘আমার মেয়ে পুঠিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ছিল। তার মারা যাওয়ার প্রায় দুই মাস পেরিয়ে গেছে। লোকমুখে শুনছি আসামি প্রকাশ্যে তার এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। কিন্তু পুলিশ নাকি তাকে খুঁজে পাচ্ছেন না। আমি ভ্যানচালক গরীব মানুষ, তাই হয়তো মেয়ের ওপর নির্যাতন ও তার আত্মহত্যার প্ররোচনাকারীদের সঠিক বিচার হবে না। তাই নিজেই বিচারের দাবি নিয়ে রাস্তায় নেমেছি।’

পুঠিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল ইসলাম বলেন, ‘মামলার তদারকিতে পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো গাফিলতি নেই। আসামিদের আটক করতে আমরা বিভিন্নভাবে চেষ্টা করছি। আর ওই পরিবারকেও বলা হয়েছে আসামিদের কোনো সন্ধান পেলে আমাদের জানাতে।’

ইভার বাবা বলেন, এ বছরের জানুয়ারি মাসে উপজেলার হলহোলিয়া গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে এখলাস আলীর সঙ্গে তার বড় মেয়ের বিয়ে দেন। মার্চের শেষের দিকে ছোট মেয়ে ইভা তার বোনের বাড়ি বেড়াতে যায়। সেখানে এক সপ্তাহ থাকে। এরপর বাড়ি ফিরে কারও সঙ্গে কথা বলত না। পরে সে তার মাকে জানান, দুলাভাই জুসের মধ্যে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে তাকে ধর্ষণ করেছে। এ ঘটনার পর বড় মেয়েকেও জামাইয়ের বাড়ি থেকে নিয়ে আসেন সেলিম।

তিনি বলেন, ‘জামাইয়ের পরিবারকে জানিয়েও ঘটনার বিচার পাইনি। গত ৯ এপ্রিল সকালে আমি ভ্যান চালাতে রাজশাহী শহরে যাই। সেখানে যাওয়ার পর ছোট মেয়ের আত্মত্যার খবর পাই।’ ওইদিন দুপুরে ইভা ঘরের তীরের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে।

এ ঘটনায় সেলিম বাদী হয়ে ধর্ষক দুলাভাইসহ তার পিতা ও মাতাকে আসামীমি করে থানায় মামলা করেন। পুলিশ ঘটনার দিন রাতে দুলাভাইয়ের মা জরিনা বেগমকে (৪৮) আটক করলেও অন্যরা এখনও পলাতক।

পুলিশ সুপার মো. শহীদুল্লাহ জানান, তিনি শুনছেন, ইভার বাবা মেয়ের ধর্ষণ ও আত্মহত্যার প্ররোচনাকারীদেও বিচার দাবিতে একাই রাস্তায় নেমেছিলেন। পুলিশ বিষয়টি কঠোরভাবে নিয়েছে। তারা অভিযুক্তকে গ্রেফতারে সবধরনের উদ্যোগ নিয়েছেন। ইভার বাবা যাতে ন্যায্য বিচার পান, পুলিশ সেটি করবে বলে তিনি জানান।