ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে এতদিন পর অ্যান্টিজেন টেস্টের উদ্যোগ: ডা. জাফরুল্লাহ

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী- সংগৃহীত ছবি

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী অভিযোগ করেছেন নিজেদের স্বার্থে ব্যবসা করার জন্য এতদিন পর অ্যান্টিজেন টেস্টের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আজ দুপুরে ধানমন্ডিতে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের সামনে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতাল কোভিড ১৯ মোকাবেলায় সম্মুখ সারির যোদ্ধাদের শ্রদ্ধা ও সম্মান প্রদর্শন করে ১ মিনিট অবিরাম করতালি কর্মসূচি পালন করার সময় তিনি এ কথা বলেন। সারাদেশে গণস্বাস্থ্যের ৩০টি শাখায় এই কর্মসূচি পালন করা হয়। ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘এই সরকার ব্যবসায়ীদের সরকার। আমাদের অ্যান্টি-বডি এবং অ্যান্টিজেন কিট প্রস্তুত থাকার পরও ব্যবসায়িক অংশীদার করা হয়নি বলেই সরকার তা অনুমোদন না দিয়ে আমদানির অনুমোদন দিয়েছে। এটি স্বভাবতঃ ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে।’

সরকারের উদ্দেশ্য ৭১-এর মুক্তিযোদ্ধা ও ঔষধ নীতির প্রবক্তা জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘কিটের অনুমতি চেয়ে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র আর আবেদন করবে না। তবে সরকার যদি নিজে অনুমোদন দেয় তবে জি কে কিট সরবরাহ করবে।’ তিনি আরো বলেন, সরকার এখনো ভুলনীতিতে চলছে, তারা করোনার ভ্যাকসিন ট্রায়ালের অনুমোদনও সময় মতো দেয়নি। জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘কীট উন্নয়নে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ১০ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে কিন্তু সরকার গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে অনুমোদন দেয়নি। এর উদ্দেশ্য শুধুই ব্যবসায়িক বলেই এখন বিদেশ থেকে আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।’

এক প্রশ্নের উত্তরে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘এই সরকার যা ইচ্ছে তাই করছে, নিরপেক্ষ মধ্যবর্তী নির্বাচনের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠিত হলেই দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার উন্নয়ন হবে। জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, যুদ্ধ হলে লোক মারা যাবে তেমনি স্বাস্থ্যের দুর্যোগের সময় ডাক্তার নার্স এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে থাকবেন এটাই স্বাভাবিক কিন্তু এদের জন্য সরকারের যথেষ্ট সাহায্য সহযোগিতা থাকা উচিত। যারা জীবন দিয়েছেন, তারা জাতীয় বীর, জাতিকে জাতীয় বীরদের স্মরণ করতে হবে।