সাভারে দগ্ধ ৩ পোশাক শ্রমিকের মৃত্যু

Death

বাংলাদেশের ঢাকা বিভাগের ঢাকা জেলার অন্তর্গত সাভারের আশুলিয়া একটি কারখানার বয়লারের পানিতে দগ্ধ হয়ে দুই শ্রমিক ও বাসা বাড়িতে টয়লেটের গ্যাস থেকে বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে এক নারী পোশাক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সকালে ডিইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার জাহাঙ্গীর আলম বাসা-বাড়িতে বিস্ফোরণে দগ্ধ হওয়া নারীর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন।

এছাড়া পোশাক কারখানার বয়লারের পানিতে দগ্ধ হয়ে দু’জনের মৃত্যু খবর নিশ্চিত করেছেন স্বজনরা।

বয়লারের পানিতে দগ্ধ হয়ে নিহতরা হলেন- রংপুর জেলার কাউনিয়া থানার সতদা গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে রাশেদুল ইসলাম ও কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর থানার হযরত আলীর ছেলে হাসান আলী। তারা উভয়ই আশুলিয়ার কুটুরিয়া এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে স্থানীয় এসডিএস ইয়ার্ন ডায়িং নামে একটি কারখানায় কাজ করতেন।

অপর ঘটনায় নিহত ফিরোজা বেগম নামে ওই নারী আশুলিয়ার পল্লী বিদ্যুৎ এলাকায় একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করতেন বলে জানা গেছে।

ফায়ার সার্ভিস ও নিহতের স্বজনদের মাধ্যমে জানা গেছে, গত ৩ জুন সন্ধ্যায় আশুলিয়ার কুটুরিয়া এলাকায় এসডিএস ইয়ার্ন ডায়িং নামের কারখানার বয়লারের গরম পানিতে দগ্ধ হন হাসান, রাশেদুল, আনোয়ার ও ওয়াসিম নামে চার শ্রমিক। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে এদের মধ্যে মঙ্গলবার (৮ জুন) রাতে হাসান ও সবশেষ বুধবার (৯ জুন) রাতে রাশেদুলের মৃত্যু হয়। তবে অন্য দু’জন চিকিৎসা নিয়ে আগেই ফিরে যান।

এর আগে, গত ৩১ মে আশুলিয়ার কবরস্থান রোড এলাকায় হুমায়ন কবিরের বাড়িতে বাথরুমের গ্যাস থেকে বিস্ফোরণে একই পরিবারের তিন জনসহ মোট ছয়জন দগ্ধ হন। তাদের মধ্যে চার জনকে ঢামেক হাসপাতালের শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হলে ৯ জুন রাতে ফিরোজা নামে এক নারী মারা যান।

ডিইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার জাহাঙ্গীর আলম জানান, সেই ঘটনায় একই পরিবারের চার জনসহ দগ্ধ ছয় জনকে ঢামেক হাসপাতালের শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছিল। বুধবার রাতে আফরোজা নামে এক নারীর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে।