মিসরের প্রাচীন মমির সিটি স্ক্যান করা হলো ইতালির এক হাসপাতালে

মমির সিটি স্ক্যান - সংগৃহীত ছবি

মিসরের নামের সঙ্গে প্রাচীন মমির কথা অঙ্গাঙ্গী ভাবে জড়িত। এখনো রহস্যের বিষয় হাজারো বছর আগে মরদেহ সংরক্ষণ করে রাখার বিশেষ এ উপায়। রহস্য উদ্‌ঘাটন করার জন্য গবেষণার অংশ হিসেবে এবার একটি মমির সিটি স্ক্যান করা হলো ইতালির এক হাসপাতালে।

জানা যায়, যার মমির সিটি স্ক্যান করা হয়েছে, তাকে দেবতা বলে মনে করতেন প্রাচীন মিসরের মানুষ। তার নাম আনখেখোনসু। মমিটি পরীক্ষা–নিরীক্ষার জন্য ইতালির উত্তর–পূর্বাঞ্চলীয় শহর বেরগামোর সিভিক আর্কিওলজিক্যাল জাদুঘর থেকে মিলানের পলিক্লিনিকো হাসপাতালে নেওয়া হয়েছিলো। বিশেষজ্ঞদের, মেডিকেল পরীক্ষার পর আনখেখোনসুর জীবনধারণ এবং তিন হাজার বছর আগে তাকে সমাহিত করার নানা বিষয় সম্পর্কে জানা যাবে।

মমি নিয়ে গবেষণাকারী ইতালির মিলানের প্রতিষ্ঠান মমি প্রজেক্ট রিসার্চের পরিচালক সাবিনা মালগোরা এ প্রসঙ্গে জানান, আক্ষরিক অর্থেই একেকটি মমি জীববিজ্ঞানের একটি জাদুঘর। গবেষণার জন্য এগুলো খুবই কাজের।

মালগোরা আরও জানান, খ্রিষ্টপূর্ব ৯০০ থেকে ৮০০ সময়কালে বেশ কিছু কফিন মিসরে পাওয়া যায়। সেসব কফিনে মমির নামের তথ্য পাওয়া গেছে। আনখেখোনসুর নামও একটি কফিন থেকে নিশ্চিত হওয়া হয়েছে। তার নাম কফিনে পাঁচবার লেখা ছিল। তার নামের অর্থ, ‘দেবতা খোনসু জীবিত’।