নেত্রকোনায় চালকের অভাবে অযত্নে পড়ে আছে নৌ অ্যাম্বুলেন্স

Netrokona-Ambulance

নেত্রকোনা নেত্রকোণা জেলা বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলের ময়মনসিংহ বিভাগের একটি প্রশাসনিক এলাকা এবং এটি হাওর অধ্যুষিত এলাকা। চারটি উপজেলার প্রায় সবটুকুই হাওরে। তার মধ্যে খালিয়াজুরি যেন এক বিচ্ছিন্ন দ্বীপ। চারপাশে অথই পানি। একদিকে সুনামগঞ্জের হাওর, একদিকে কিশোরগঞ্জের হাওর। এমন একটি উপজেলা যার সাথে নিজ জেলারই যোগাযোগ করতে অর্থাৎ যাওয়া-আসায় দুদিন লেগে যায়।

এখানকার মানুষেরা বেঁচে থাকে প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করে। যে কারণে এমন হাওরের শিক্ষা, স্বাস্থ্য ব্যবস্থাসহ নাগরিক সকল সুবিধাই অনেক নাজুক। বর্ষায় যোগাযোগের ক্ষেত্রে ট্রলার, লঞ্চ অথবা স্পিডবোট ছাড়া কোনো উপায়ই যেন নেই।

হাসপাতালে নেই কোনো অ্যাম্বুলেন্স সুবিধা। জরুরি রোগীদের জন্য যেন সৃষ্টিকর্তাই ভরসা। আর এটি থেকে রেহাই দিতে এই দ্বীপ সফরে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খালিয়াজুরি উপজেলাবাসীকে ২০১৮ সালে উপহার দিয়েছিলেন একটি নৌ অ্যাম্বুলেন্স। কিন্তু এই উপহার অযত্ন ও অবহেলায় পড়ে আছে গত দুই বছর ধরে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ২ বছরে একজন রোগীও ব্যবহার করতে পারেননি এই নৌ অ্যাম্বুলেন্স। কর্তৃপক্ষের দাবি, ড্রাইভার না থাকার কারণে সেবা দিতে পারছেন না তারা।

সাধারণ মানুষ বলছেন, দুর্গম হাওর উপজেলার রোগীদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার কি তাহলে এভাবেই নষ্ট হবে? এছাড়াও এর আগে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে ঘাটাইলের জিওসি একটি নৌ অ্যাম্বুলেন্স দিয়েছিলেন। সেটিও চালকের অভাবেই নষ্ট হয়েছে। উপজেলাবাসী ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানান, চালক নিয়োগ দিয়ে যেন নৌ অ্যাম্বুলেন্স সচল করা হয়।

এ বিষয়ে খালিয়াজুরি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ এইচ এম আরিফুল ইসলাম জানান, গত এক বছর আগে উপজেলা পরিষদের মিটিংয়ে রেজুলেশন করে জেলায় পাঠিয়ে ছিলাম। সাবেক জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জন লিখে দেওয়ার কথা রয়েছে। উনারা লিখে না দিলে আমরা ব্যবস্থা নিতে পারছি না।