শেষ হওয়া প্রকল্পের ফলাফল যাচাইয়ের নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর

সংগৃহীত ছবি

কাজ শেষ হয়েছে এমন প্রকল্পগুলোর ফলাফল যাচাইয়ের নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে একনেক বৈঠকে একথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অশান্ত পরিবেশ বিশ্বব্যাপী সৃষ্টি হতে যাচ্ছে। এরজন্য পণ্য পরিবহনে আবারও প্রতিবন্ধকতা দেখা দিচ্ছে। এ জন্য জিনিসের দাম বেড়ে যাচ্ছে। বর্হিবিশ্বের নানা কারণে চাপটা আমাদের উপর এসে পড়েছে।’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘অভ্যন্তরীণ উৎপাদন বাড়িয়ে নির্ভরশীলতা অর্জনের মাধ্যমে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা সম্ভব হবে। এক টুকরো জমিও খালি রাখা যাবে না।’

বাংলাদেশের অন্যদের ওপর নির্ভরশীল হওয়ার প্রয়োজন নেই উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা নিজেরা উৎপাদন করবো। কিন্তু কিছু জিনিস আমাদের বাহির থেকে আনতেই হচ্ছে। সেখানে আমরা চেষ্টা করলে উৎপাদন বাড়াতে পারবো। নিজেরা স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার লক্ষ্য আমাদের।’

শেরে বাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে এই সরকারের প্রথম একনেক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। আজকের বৈঠকে বেশ কয়েকটি প্রকল্প অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হয়েছে। এসময় প্রধানমন্ত্রী চলমান প্রকল্পগুলো দ্রুততম সময়ে সম্পন্ন করার নির্দেশনা দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাপী অশান্ত পরিবেশ সৃষ্টি হতে যাচ্ছে, যার জন্য বিশ্বব্যাপী পণ্য পরিবহনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে জিনিসের দামও বেড়ে যাচ্ছে, পণ্য আনতে সময়ও লেগে যাচ্ছে। নানা কারণে বহির্বিশ্বের চাপটা আমাদের ওপর এসে পড়ছে।

অন্য দেশের ওপর নির্ভরশীল থাকার দরকার নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা নিজেরা সব উৎপাদন করবো। এজন্য সবাইকে বলেছি, এক ইঞ্চি জমিও যেন পড়ে না থাকে।

ধীরে ধীরে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়াই এখন লক্ষ্য বলে জানান সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, প্রতিটি মন্ত্রণালয়ে যে প্রকল্পগুলো অল্প খরচ করলেই শেষ হয়ে যাবে, সেগুলো দ্রুত সম্পন্ন করে ফেলতে হবে। পুরাতন প্রকল্প সম্পন্ন করলে, নতুন প্রকল্প নিতে পারবো। কিছু কিছু প্রকল্পের মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছে। সেগুলোও দ্রুত শেষ করা উচিত। তা নাহলে অহেতুক খরচও বাড়ে, কালক্ষেপণ হয়। সেটি যেন না হয়।