নেত্রী সু চিকে অবশ্যই মুক্তি দিতে হবে: যুক্তরাজ্য

Aung San Suu Kyi

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার রাষ্ট্র মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানে নেতাদের অবশ্যই দেশটির নেত্রী অং সান সু চিকে মুক্তি হবে বলে জাতিসংঘে আহ্বান জানাতে যাচ্ছেন যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব।

জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে বক্তব্য দেবেন ডমিনিক রাব। বক্তব্যে তিনি মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে ক্ষমতা ছাড়তে বলবেন। একই সঙ্গে মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে সম্মান জানাতে বলবেন।

সোমবার বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে হতাহত হওয়ার ঘটনার পর যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাবের কাছ থেকে এমন আহ্বান আসছে।

গত শনিবার মিয়ানমারের মান্দালয় শহরে বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালায় নিরাপত্তা বাহিনী। গুলিতে দুজন নিহত ও অন্তত ২০ জন আহত হন। মিয়ানমারে সেনাশাসনের বিরুদ্ধে দুই সপ্তাহের বেশি সময় ধরে বিক্ষোভে সবচেয়ে সহিংস ও রক্তক্ষয়ী দিন ছিল শনিবার।

গুলির ঘটনায় ইতোমধ্যে টুইটারে প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ডমিনিক রাব বলেছেন, শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি অগ্রহণযোগ্য।

তিনি বলেন, গণতন্ত্রকে দমন ও বিরুদ্ধমতকে রুদ্ধ করার বিরুদ্ধে তাঁরা তাঁদের আন্তর্জাতিক অংশীদারদের সঙ্গে নিয়ে মিয়ানমারের সামরিক কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আরও পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করবেন।

জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে ডমিনিক রাব বলবেন, মিয়ানমারের পরিস্থিতি আরও খারাপ হচ্ছে। সেখানে মানবাধিকার লঙ্ঘন ও নিপীড়নের ঘটনা ঘটছে।

ডমিনিক রাবের বক্তব্যে রোহিঙ্গা ইস্যুও উঠে আসবে। জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে তিনি বলবেন, মিয়ানমারের বর্তমান সংকট দেশটির রোহিঙ্গাসহ অন্যান্য সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠীর জন্য আরও ঝুঁকি তৈরি করছে। তিনি সু চিসহ দেশটির বেসামরিক নেতাদের মুক্তির জন্য আহ্বান জানাবেন।

মিয়ানমারে গত নভেম্বরের সাধারণ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) বিপুল ভোটে জয়ী হয়। নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে ১ ফেব্রুয়ারি রক্তপাতহীন অভ্যুত্থানের মাধ্যমে মিয়ানমারের ক্ষমতা দখল করে দেশটির সেনাবাহিনী। আটক করা হয় এনএলডির নেতা সু চিসহ দলটির শীর্ষ নেতাদের। একই সঙ্গে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দেশটিতে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করে।

মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে টানা বিক্ষোভ চলছে। দিন যত গড়াচ্ছে, বিক্ষোভের ব্যাপকতা তত বাড়ছে। শনিবার নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে দুই বিক্ষোভকারী নিহত হওয়ার পরদিন গতকাল রোববার দেশটির সব শহরে বড় ধরনের বিক্ষোভ হয়। এতে অংশ নেন হাজার হাজার মানুষ।