হানাদি হালাওয়ানি যিনি ইসরাইলের কাছে ‘ভয়ঙ্কর’ নারী!

হানাদি হালাওয়ানি
ইন্টারনেট সংগৃহীত ছবি

ইহুদিবাদীদের আগ্রাসনের প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে বার বার গ্রেফতার হয়েছেন একজন নারী। ছাড়া পেয়ে রাস্তায় নেমে আবার প্রতিবাদে যোগ দেন। সাহসী সেই ফিলিস্তিনি নারীর নাম হানাদি হালাওয়ানি। জেরুজালেমে পবিত্র মসজিদ আল-আকসায় ইহুদিবাদীদের আগ্রাসনের প্রতিবাদ করে তিনি এ পর্যন্ত ৬০ বার ইসরাইলি দখলদার বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হন।

ইসরাইলি বাহিনী ফিলিস্তিনের এই বীর নারীকে গ্রেফতার করেও দমাতে পারেনি। কট্টরপন্থি ও বর্ণবাদী উগ্রবাদী ইহুদিদের হাত থেকে পবিত্র আল-আকসাকে রক্ষার জন্য ফিলিস্তিনি নারীদের নিয়ে গঠিত সংগঠন ‘মুরাবিতাত’ এর নের্তৃত্ব দিচ্ছেন এ অদম্য সাহসী নারী। দখলদার ইসরাইলের কাছে মূর্তিমান আতঙ্ক এ বীর ফিলিস্তিনি নারী। ইসরাইলি পুলিশের তালিকায় সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ফিলিস্তিনি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে হানাদি হালাওয়ানিকে। বারবার গ্রেফতার ও নির্যাতন করেও ইসরাইল তাকে দমাতে পারেনি। প্রতিবারই জেল থেকে ছাড়া পেয়ে আল-আকসার জন্য আবারও আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন তিনি।

তাকে জেরুজালেমের আল-আকসায় ইসরাইল সরকার নিষিদ্ধ করেছে। তার সঙ্গে আরেক অদম্য ফিলিস্তিনি নারী খাদিজা খুইজও আল-আকসাকে মুক্ত করার আন্দোলনে গিয়ে ২৮ বার গ্রেফতার হয়েছেন ইসরাইলি বাহিনীর হাতে। আটকের পর এসব মুরাবিতাতের সদস্যদের ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালায় ইসরাইলি বাহিনী। ইসরাইল সেনারা যখন-তখন জুতা পরে এবং অস্ত্র নিয়ে পবিত্র আল-আকসায় প্রবেশ করায় বিক্ষোভে ফেটে পড়েন ফিলিস্তিনি এসব নারীরা। পুরুষদের পাশাপাশি তারাও কঠোর আন্দোলনে শরিক হন।

এসব নারী আন্দোলনকারীরা ইসরাইলি দখলদারিত্বের বিরুদ্ধেও সোচ্চার। ইসরাইলি বাহিনীর গ্রেফতার ও নির্যাতন উপেক্ষা করেই বছরের পর বছর ধরে দেশ মাতৃকা ও পবিত্র আল-আকসার জন্য লড়ে যাচ্ছেন বীর এসব ফিলিস্তিনি নারীরা।

সংবাদ সূত্রঃ আরব নিউজ, ডন ডটকম