ঢাকার নবাবগঞ্জের বান্দুরা বাসস্ট্যান্ডে অগ্নিকাণ্ড, বাস ও দোকান ভস্মীভূত

ইন্টারনেট সংগৃহীত ছবি

ঢাকার নবাবগঞ্জের বান্দুরা বাসস্ট্যান্ডে অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে গেছে সারিবদ্ধ করে রাখা এন মল্লিক পরিবহনের ৯টি বাস ও ১৫টি দোকান। আজ বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার বান্দুরা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অগ্নিকান্ডের এ ঘটনা ঘটে বলে জানান, নবাবগঞ্জ থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম শেখ। স্থানীয়দের সহায়তায় দুপুর একটার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন ফায়ার সার্ভিসের ৫টি ইউনিট। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ দক্ষিণ) হুমায়ন কবির, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এইচ এম সালাহউদ্দিন মনজু, ফায়ার সার্ভিস ঢাকা জোন-৫ এর উপপরিচালক হাফিজুর রহমান, দোহার সার্কেলের এএসপি জহিরুল ইসলাম, নবাবগঞ্জ থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম।

স্থানীয়রা জানান, সকালে বান্দুরা বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন চুন্নুর তেলের দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তের মধ্যে সে আগুন আশপাশের কয়েকটি দোকানে ছড়িয়ে পড়লে লকডাউনের কারণে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় বাসস্ট্যান্ডে সারিবদ্ধ করে রাখা এন মল্লিক পরিবহনের ৯টি বাস আগুনে পুড়ে যায়। সংবাদ পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ৫টি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে স্থানীয় ও পুলিশের সহায়তায় প্রায় চার ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। এঘটনায় চুন্নুর ছেলে জাকির আহত হন।

ফায়ার সার্ভিস ঢাকা জোন-৫ এর উপ-সহকারী পরিচালক হাফিজুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে জানান, কিভাবে আগুনের সূত্রপাত তদন্তের আগে তা বলা যাবে না। আমি তদন্ত করে জানতে পারব কিভাবে আগুনের সূত্রপাত।

তবে এন মল্লিক পরিবহনের কর্ণধার নার্গিস মল্লিকের দাবি এঘটনা পরিকল্পিত। ফেসবুকে ষড়যন্ত্রকারীরা লিখেছিল এন মল্লিকের সব কয়টি গাড়ি জ্বালিয়ে দিন। তারাই ষড়যন্ত্র করে গাড়িতে আগুণ দিয়েছে। তারা আমাকে গাড়ি সরাতে বলেছিল আমি গাড়ি সরাই নাই তাই তারা আগুন দিয়েছে।

এ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় একজন আহত হয়েছে বলে জানান নবাবগঞ্জ থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম। তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।